নয়াদিল্লি: করোনায় তহবিল সংগ্রহে ভারত-পাক ক্রিকেট ম্যাচ আয়োজন নিয়ে শোয়েব আখতারের প্রস্তাব উড়িয়ে দিলেন কপিল দেব৷ করোনা মোকাবিলায় ভারতের অর্থের দরকার নেই বলে মন্তব্য করেন ভারতের বিশ্বকাপজয়ী অধিনায়ক৷

বুধবার ইসলামাবাদে পিটিআই-কে এক সাক্ষাৎকারে প্রাক্তন পাক স্পিডস্টার বলেন, ‘ভারত-পাকিস্তান দু’দেশেই প্রচুর মানুষ করোনায় আক্রান্ত হচ্ছেন। তাই এই কঠিন পরিস্থিতি কিছুটা স্বাভাবিক হলে দুই দেশের মধ্যে তিন ম্যাচের ওয়ান ডে সিরিজ খেলা উচিত৷ সেখান থেকে যে অর্থ উঠবে তা তা দু’দেশের ত্রাণ তহবিলে জমা করা যেতে পারে।’

আর বৃহস্পতিবার চণ্ডীগড়ে পিটিআই-কে দেওয়া সাক্ষাৎকারে কপিল বলেন, ‘শোয়েব তার মতামত জানিয়েছে৷ তবে আমাদের অর্থ সংগ্রহের দরকার নেই। করোনার বিরুদ্ধে আমাদের যথেষ্ট আছে৷ এখন যেটা গুরুত্বপূর্ণ তা হল, আমাদের একজোগে এই সঙ্কটের মোকাবিলা করা৷ রাজনীতিবিদদের কাছ থেকে টেলিভিশনে আমি এখনও অনেক দোষের খেলা দেখছি এবং এটাকেও থামানো দরকার৷’

করোনা মোকাবিলায় অনেক আগেই ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড ৫১ কোটি টাকা দিয়েছে৷ এ প্রসঙ্গে কপিল বলেন, ‘বিসিসিআই ইতিমধ্যেই প্রধানমন্ত্রী কেয়ারস ফান্ডে ৫১ কোটি টাকা দিয়েছে৷ প্রয়োজনে আরও দিতে পারবে৷ এর জন্য তহবিল সংগ্রহ করার দরকার নেই।’

বিশ্বকাপজয়ী প্রাক্তন ভারত অধিনায়ক আরও বলেন, ‘পরিস্থিতি খুব শীঘ্রই স্বাভাবিক হওয়ার সম্ভাবনা নেই৷ সুতরাং কোনও ক্রিকেট ম্যাচের আয়োজনের অর্থ আমাদের ক্রিকেটারদের ঝুঁকির মধ্যে ফেলে দেওয়া, যা আমাদের দরকার নেই৷’ কপিলের মতে, কমপক্ষে পরবর্তী ছ’মাস আমাদের ক্রিকেটকে গুরুত্ব দেওয়া উচিত নয়।

কপিল আরও বলেন, ‘এই মুহূর্তে কেবলমাত্র আমাদের লক্ষ্য জীবন বাঁচানো এবং দরিদ্রদের পাশে দাঁড়ানো৷ লকডাউনের পর পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে ক্রিকেট আবার শুরু হবে৷ কারণ দেশের চেয়ে বড় কিছু হতে পারে না। আমাদের এখন কর্তব্য হল দরিদ্র, স্বাস্থ্যকর্মী, পুলিশ এবং করোনা যুদ্ধের প্রথম সারিতে থাকা সমস্ত লোকদের দেখাশোনা করা৷’

একজন ভারতীয় হিসাবে গর্ববোধ করে বিশ্বকাপজয়ী অধিনায়ক বলেন, ‘আমরা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র-সহ অন্যান্য দেশগুলিকে সহায়তা করার মতো অবস্থানে রয়েছি।’ পাশাপাশি মার্কিন রাষ্ট্রপতি ডোনাল্ড ট্রাম্পের আবেদনে সাড়া দিয়ে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রকে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর হাইড্রোক্সিলোক্লোকিন সরবরাহে সহায়তা করার জন্য ধন্যবাদ জানিয়েছেন কপিল৷

এছাড়াও লকডাউনে বাড়িতে আটকে থাকা প্রসঙ্গে কিংবদন্তি ম্যান্ডেলার ২৭ বছরের কারাবাসকে উল্লেখ করেছেন কপিল৷ এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘নেলসন ম্যান্ডেলা ২৭ বছর ধরে একটি ক্ষুদ্র সেলে ছিলেন। তার তুলনায়, আমরা একটি সুবিধাজনক অবস্থানে রয়েছি৷ এই মুহূর্তে জীবনের চেয়ে বড় আর কিছুই নেই৷ সুতরাং আমাদের নকডাউন মেনে চলতে হবে৷’

পচামড়াজাত পণ্যের ফ্যাশনের দুনিয়ায় উজ্জ্বল তাঁর নাম, মুখোমুখি দশভূজা তাসলিমা মিজি।