কানপুর: ধারের টাকা চাওয়ার মূল্য চোকাতে হল দোকানদারকে। টাকা চাওয়ার ফলে ওই দোকানদারকেই জীবন্ত জ্বালিয়ে দিল এক প্রতিবন্ধী। এই ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে স্থানীয় এলাকায়। ঘটনাটি উত্তরপ্রদেশের কানপুরের। ইতিমধ্যেই গুরুতর আহত দোকানদারকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। চিকিৎসকেরা জানিয়েছেন তাঁর দেহের ৯০% পুড়ে গিয়েছে।

ঘটনাটি গত ৮ ডিসেম্বরের। কানপুরের দেহাতের রুরা থানার একঘরা গ্রামের ঘটনা। ওই গ্রামেই নিজের একটি ছোট পান-মশলার দোকান চালাতেন রাজন সিং। ৮ ডিসেম্বরের রাতে বন্ধু-বান্ধবদের সঙ্গে ওই দোকানে আসে অভিযুক্ত সঞ্জয় যাদব । অভিযোগ, রাজনের কাছে গুটখা খাওয়া বাবদ ১১ টাকা ধার ছিল সঞ্জয়ের। সেই টাকা ফেরত চাইতেই ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে সঞ্জয়।

প্রথমে তীব্র বাদানুবাদে জড়িয়ে পড়ে তাঁরা। এরপরেই রাজনকে ধরে মারধর শুরু করে অভিযুক্তের বন্ধুরা। মারতে মারতে দোকানে ঢুকিয়ে দরজা বন্ধ করে দেওয়া হয়। কিছুটা দূর থেকে পেট্রল নিয়ে আসে সঞ্জয়। দোকানের গায়ে পেট্রল ঢেলে ঘটনাস্থল থেকে চম্পট দেয় সঞ্জয় ও তাঁর সঙ্গীরা।

অন্যদিকে, দোকানে জ্বলন্ত অবস্থায় প্রবল চিৎকার শুরু করে দেন রাজন। তাঁর আর্ত চিৎকার শুনে ছুটে আসেন প্রতিবেশীরা। তারাই কোনওমতে আগুন নিভিয়ে অগ্নিদগ্ধ অবস্থায় আহত রাজনকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যায়। কানপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার অনুপ কুমার জানিয়েছেন, ইতিমধ্যেই এই ঘটনার সঙ্গে জড়িত এক ব্যক্তিকে গ্রেফতার করা হয়েছে। মূল অভিযুক্ত সঞ্জয়ের খোঁজে তল্লাশি চলছে খুব শীঘ্রই সমস্ত অভিযুক্তকে গ্রেফতার করা হবে।