মুম্বই: অধিকাংশ সময়ই বিভিন্ন বিষয় নিয়ে অভিনেতাদের নিশানা করেন অভিনেত্রী কঙ্গনা রানাউত। কিন্তু কিন্তু অভিনেত্রী প্রিয়ঙ্কা চোপড়ার প্রশংসায় পঞ্চমুখ হয়েছিলেন কঙ্গনা। একই সঙ্গে মধুর ভান্ডারকর এর ছবি ফ্যাশন-এ অভিনয় করেছিলেন। সেই ছবির ১২ বছর পূর্ণ হল। তাই স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে প্রিয়ঙ্কার প্রশংসা করলেন বলিউডের রিভলবার রানি।

প্রিয়ঙ্কার সঙ্গে কাজ করার অভিজ্ঞতা নাকি দারুন ছিল। গ্ল্যামার ওয়ার্ল্ডে এক উঠতি মডেলের স্ট্রাগল করে জায়গা করে নেওয়ার গল্প বলেছিল ফ্যাশন। এই ছবির জন্য প্রিয়ঙ্কা এবং কঙ্গনা দুজনেই পুরস্কার পেয়েছিলেন।

এক সাক্ষাৎকারে কঙ্গনা প্রিয়ঙ্কা সম্পর্কে বলেছিলেন, “প্রিয়ঙ্কা অসাধারণ। আমার তখন মাত্র ১৯ বছর বয়স। কিন্তু সেই সময়ই প্রিয়ঙ্কা একজন তারকা। কিন্তু প্রিয়ঙ্কা আমায় সাহায্য করেছিলেন। আমার খুব ভালো লাগতো কারণ আমি স্কুলে পড়তে ও ওর ছবি দেখতাম। আর ক্যারিয়ারের শুরুর দিকে ওর সঙ্গে অভিনয় করার সুযোগ পেয়েছিলাম।”

প্রিয়াঙ্কা সম্পর্কে কঙ্গনা আরো বলছেন, “ও দারুন ছিল। জুনিয়ার অথবা একটা বাচ্চা হিসেবে আমার সঙ্গে কখনো কোন রকমের আচরণ করেনি। আমার মনে হতো কয়েকজন বন্ধু। আমার সঙ্গে খাবার শেয়ার করত। কখনো জিজ্ঞাসা করত ওকে দেখতে ঠিক লাগছে কিনা, অথবা পোশাকটা সুন্দর কিনা। সেই জন্য মনে হতো না ও আমার সিনিয়র অথবা কোন বড় একজন তারকা।”

এই ছবিতে প্রিয়ঙ্কা ও কনা ছাড়াও অভিনয় করেছিলেন মুগ্ধা গডসে। বলিউডে প্রিয়ঙ্কার প্রথম ছবি ছিল- দ্য হিরো লাভ স্টোরি অফ এ স্পাই। এর তিন বছর পরেই কঙ্গনার প্রথম ছবি গ্যাংস্টার মুক্তি পায়।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.