ভোপাল: কৃষকদের ঋণ মুকুব করার পর পেনশনে কোপ বসাল মধ্যপ্রদেশ সরকার। মুখ্যমন্ত্রী কমল নাথ পরিচালিত ওই রাজ্যের সরকার কয়েক হাজার মানুষের পেনশন বন্ধ করে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

ইন্দিরা গান্ধী প্রধানমন্ত্রী থাকাকালীন দেশে জরুরী অবস্তা জারি করেছিলেন। সেই সময়ে বহু সাধারণ মানুষকে জেলে যেতে হয়েছিল। সেই সকল মানুষদের জন্য বিশেষ পেনশন চালু করেন মধ্যপ্রদেশের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী শবরাজ সিং চৌহান। মিসা(মেইন্টেনেন্স অফ ইন্টারনাল সিকিউরিটি অ্যাক্ট) এবং ডিআইআর(ডিফেন্স অফ ইন্ডিয়া রুলস) আইনে গ্রেফতার হওয়া ব্যক্তিদের এই পেনশন দেওয়া হতো।

জরুরী অবস্থার সময়ে জেলে যাওয়া ব্যক্তিদের জন্য শিবরাজ সিং চৌহান এই প্রকল্প চালু করেছিলেন ২০০৮ সালে। যার নাম ছিল লোকতন্ত্র সেনানি সম্মান নিধি। এই প্রকল্পের অধীনে ২৬০৪ জন ব্যক্তিকে মাসিক ২৫ হাজার টাকা করে পেনশন দেওয়া হতো।

ফাইল ছবি

বিজেপি সরকারের চালু করা সেই প্রকল্প রাজনৈতিক কারণে কংগ্রেস বন্ধ করে দিচ্ছে বলে উঠেছে অভিযোগ। এই প্রসঙ্গে উঠে আসছে চার দশক আগের সেই জরুরী অবস্থার সময়ের কথা। সেই সময়ে কমল নাথ ইন্দিরা পুত্র সঞ্জয় গান্ধীর খুব ঘনিষ্ঠ ছিলেন। সেই কারণেই কমল নাথ জরুরী অবস্থার সময়ে কংগ্রেসের বিরোধিতা করা ব্যক্তিদের আর্থিক সাহায্য থেকে বঞ্চিত করতে চাইছেন বলে উঠেছে অভিযোগ। ইতিমধ্যেই এই নিয়ে আদালতে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিজেপি।

যদিও এই সকল অভিযোগ উড়িয়ে দিয়েছে কংগ্রেস। মধ্যপ্রদেশে কংগ্রেসের মুখপাত্র নরেন্দ্র সালুজা জানিয়েছেন যে প্রকল্প বন্ধ জকরা হচ্ছে না। পেনশনভোগীদের মধযে অনেক জাল ব্যক্তি রয়েছে। তাদের চিহ্নিত করে বাদ দেওয়া হবে। তবে মধ্যপ্রদেশ প্রশাসন সূত্রে জানা গিয়েছে মুখ্যমন্ত্রী অবিলম্বে লোকতন্ত্র সেনানি সম্মান নিধি বন্ধ নির্দেশ দিয়েছেন। এই মর্মে সকল ট্রেজারি এবং ব্যংকগুলিকে পেমেন্ট বন্ধ রাখারও নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।