স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: বিজেপির আন্দোলন রুখতে দুষ্কৃতীদের মতো ব্যবহার করেছে পুলিশ। বাড়ির ছাদ থেকে কর্মীদের উপরে বোমা ফেলা হয়েছে। টুইটারে ভিডিয়ো প্রকাশ করে এই চাঞ্চল্যকর দাবি করলেন পশ্চিমবঙ্গের বিজেপির পর্যবেক্ষক কৈলাস বিজয়বর্গীয়।

হাওড়ায় মিছিলে পুলিশই বোমা নিক্ষেপ করেছে বলে অভিযোগ করেছে বিজেপি।

তাদের দাবি, মিছিল শান্তিপূর্ণই চলছিল। কিন্তু পুলিশ আর তৃণমূলের গুন্ডারা বিজেপির মিছিলে বোমাবাজি করে। যদিও সমস্ত অভিযোগ উড়িয়ে দিয়েছে পুলিশ।

এদিন কৈলাশ বিজয়বর্গীয় যে ভিডিওটি প্রকাশ করেছেন, সেখানে দেখা যাচ্ছে, হাওড়া ময়দানের কাছে একটি বহুতলের ছাদ থেকে কিছু একটা নীচে ফেলছেন খাঁকি পোশাকের পুলিশ কর্মীরা।

এটির সত্যতা যাচাই করেনি কলকাতা 24×7।

কৈলাশ বিজয়বর্গীয়র দাবি, সরকারের অঙ্গুলিহেলনেই এটা করেছে পুলিশ। পুলিশের হামলায় জখম হয়েছেন দেড় হাজারের বেশি বিজেপি কর্মী। উল্লেখ্য, বৃহস্পতিবার বিজেপির যুব মোর্চার নবান্ন অভিযান ঘিরে ধুন্ধুমার কাণ্ড ঘটে শহরে৷ বিজেপির নবান্ন অভিযান শুরুতেই লাঠিচার্জের অভিযোগ ওঠে৷

বিজেপিকর্মীরা ব্যারিকেড ভেঙে এগোনোর চেষ্টা করলে সাঁতরাগাছি, হেস্টিংস মোড়ে পুলিশ লাঠিচার্জ করে বলে জানা গিয়েছে৷ পাল্টা পুলিশকে লক্ষ্য করে ইঁট ছোড়ে বিজেপিকর্মীরা ৷ সেই পরিস্থিতি মোকাবিলায় কাঁদানে গ্যাসের সেল ফাটায় পুলিশ ৷ ছোঁড়া হয় জলকামানও৷

পুলিশের জলকামান-রাসায়নিক স্প্রে-তে গুরুতর অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন বিজেপি নেতা রাজু বন্দ্যোপাধ্যায়। এদিকে, বিজেপিকে সন্ত্রাসবাদী দল বলে আক্রমণ শানিয়েছেন ফিরহাদ হাকিম।

তিনি বলেন, যে রাজনৈতিক দলের মিছিলে আগ্নেয়াস্ত্র পাওয়া যায়, যে রাজনৈতিক দলের মিছিলে বোমাবাজি হয়, তাদের সন্ত্রাসবাদী দল ছাড়া আর কিছু বলা যায় না।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।