স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: চাইলেই সিবিআই থেকে আপনি এবং আপনার পরিবারের লোকজন বাঁচবে না। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এবং তাঁর পরিবারকে শ্যামবাজার পাঁচ মাথার মোড়ে দাঁড়িয়ে হুমকি দিয়ে গেলেন রাজ্য বিজেপির পর্যবেক্ষক কৈলাস বিজয়বর্গীয়।

সন্দেশখালীর ঘটনায় নিহত প্রদীপ মণ্ডল, সুকুমার মণ্ডল এবং দেবদাস মণ্ডলের পরিবার কলকাতায় ধর্ণামঞ্চে বসেছিলেন। সেই মঞ্চে কৈলাস ছাড়াও হাজির হন মুকুল রায় এবং অর্জুন সিং। সেখানে নিজের বক্তব্যে কৈলাসের সাফ কথা, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তাঁর সাংসদ সুদীপ বসন্দ্যপাধ্যায়ের জন্য রাস্তায় নেমেছিলেন কী? সুদীপ যখন ভুবনেশ্বর সিবিআই হেফাজতে তখন মমতা কতবার গিয়েছিলেন? রাজীব কুমারের জন্য তিনি ধর্ণায় বসলেন কেন? কৈলাসের বক্তব্য, এই ধরণের সরকারি অফিসার মমতার সর্বনাশ করে ছাড়বে। এরা কারও ভালো করে না।

এদিন কৈলাস বলেন, রাজ্য যারাই বিজেপি করছেন, তাঁদের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দায়ের করা হচ্ছে। মুকুল রায়কে জানতে চান তাঁর বিরুদ্ধে কটা মামলা রয়েছে। মুকুল বলেন ৩৭ টা। ব্যারাকপুর সাংসদ অর্জুন সিং জানান তিনি ‘হাফ সেঞ্চুরি’ করে ফেলেছেন। তার কপালের ঝুলছে ৫০ টি মামলা। যা শুনে, কৈলাস কৌতুক করে বলেছেন, এই তো চার মাস হলো বিজেপিতে এলেন। এই চার মাসে এত কিছু!

এদিন কৈলাস বলেন, সন্দেশখালীতে বিজেপির তিন নেতাকে শেখ শাহজাহান সহ যারা খুন করেছে , তারা ঘুরে বেড়াচ্ছে। কিন্তু, মৃত দেবদাস মণ্ডলের মৃতদেহ পাওয়া যায় নি। তার অন্তিম সৎকার হয়নি। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ‘পাশবিক’ সরকার মৃতদেহ পর্যন্ত খুঁজে বার করতে পারলো না। এদিন মঞ্চেই অসুস্থ হয়ে পড়েন দেবদাস মণ্ডলের স্ত্রী।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ