স্টাফ রিপোর্টার, ব্যারাকপুর: নৈহাটির পর গারুলিয়া, তারপর ভাটপাড়া.. আবার সব পুরসভা তৃণমূল কংগ্রেসের হাতে চলে আসবে। এখন শুধু সময়ের অপেক্ষা। ভাটপাড়া পুরসভার ৩৪ জন কাউন্সিলরের মধ্যে ২১ জন যোগাযোগ রাখছে। ভাটপাড়াও তৃণমূলের হাতে আসবে।” বুধবার সন্ধেয় অর্জুন সিংয়ের গড় ভাটপাড়ায় দাঁড়িয়ে একথা বললেন রাজ্যের খাদ্যমন্ত্রী তথা উত্তর ২৪ পরগনা জেলা তৃণমূল কংগ্রেস সভাপতি জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক।

তাঁর দাবি, উত্তর ২৪ পরগনার ভাটপাড়া পুরসভার দখল নেবে তৃণমূল। ইতিমধ্যেই এই পুরসভার ২১ জন দলছুট কাউন্সিলর তৃণমূলের সঙ্গে যোগাযোগ রাখছে বলে জানিয়েছেন জ্যোতিপ্রিয়। তিনি বলেন, ‘কাগজ তৈরি হলেই অনাস্থা আনব আমরা। আশা করছি আগামী নভেম্বর মাসে অনাস্থা প্রস্তাব আনতে পারব আমরা। মানুষ আমাদের সঙ্গে আছে। যারা বিজেপিতে চলে গিয়েছিল তারা এখন নিজেদের ভুল স্বীকার করছেন। দলের নীতি আদর্শ বড় বিষয়।’

এদিন তিনি আরও দাবি করেন যে, এই ভাটপাড়া পুরসভায় উন্নয়নের ৬০০ কোটি টাকা এসেছিল। বলেন, ‘সেই ৬০০ কোটি টাকার কি কাজ হল এখানে তা ভাটপাড়া বাসীরা জানতে চায়, আমরা জানতে চাই। আমরা চাই অডিট হোক পুরসভার কাজের।’ মাননীয় পুর ও নগরোন্নয়ন মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম বিষয়টি দেখবেন বলেও জানিয়েছেন তিনি।

আত্মবিশ্বাসের সঙ্গে খাদ্যমন্ত্রী বলেন, ‘এই ভাটপাড়া পুরসভাও আমাদের দখলে আসবে। অর্জুন সিং যেখানে বলবে সেখানেই ভাটপাড়া পুরসভার আস্থা ভোটে হবে। প্রকাশ্যে আস্থা ভোটেও আপত্তি নেই।”

ভাটপাড়া পুরসভা সংলগ্ন প্রেম চাঁদ শত বার্ষিকী হলে তৃণমূল কর্মীদের নিয়ে ভাটপাড়ায় বিজয়া সম্মিলনীতে এসে একথাই জানান রাজ্যের খাদ্যমন্ত্রী তথা উত্তর ২৪ পরগনা জেলা তৃণমূল কংগ্রেস সভাপতি জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক। এদিন ভাটপাড়ায় শতাধিক বিজেপি কর্মী নিয়ে তৃণমূল কংগ্রেসে যোগদান করেন মনোজ গুপ্তা। জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক, মন্ত্রী তাপস রায়, নির্মল ঘোষ মনোজ গুপ্তাকে তৃণমূলে যোগদান করান। ভাটপাড়ার প্রেমচাঁদ শতবার্ষিকী হলে তৃণমূল কংগ্রেসের এই বিজয়া সম্মিলনীতে উপস্থিত ছিলেন ভাটপাড়া এলাকার স্থানীয় তৃণমূল নেতৃত্বও শতাধিক কর্মী সমর্থকরা।