প্রতীতি ঘোষ,বারাকপুর : “২০২১ সালে বারাকপুর লোকসভা কেন্দ্রের অন্তর্গত ৭ টি বিধানসভার প্রত্যেকটিতেই তৃণমূল জিতবে । অর্জুন সিংকে আমরা বুঝিয়ে দেব কত ধানে কত চাল।” উত্তর ২৪ পরগনার হালিশহরে বিজেপির বিরুদ্ধে প্রতিবাদ সভা করতে এসে একথাই জানালেন রাজ্যের খাদ্যমন্ত্রী তথা উত্তর ২৪ পরগনা জেলা তৃণমূল সভাপতি জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক ।

এদিন তিনি বলেন, “গুন্ডামি করে রাজনীতি করা যায় না । অর্জুন কি করছে সবাই দেখছে ।” এদিন রাজ্যের খাদ্যমন্ত্রী আরও বলেন, হালিশহরে ঘটনার সূত্রপাত করেছিল বিজেপি । ওরা আগে সুবোধের গাড়িতে হামলা করেছিল । আমরাও রক্ত মাংসের মানুষ । ওরা যা করেছে, তার প্রতিরোধ করা হয়েছে । আমরা হিংসায় বিশ্বাস করি না । আমরা বিরোধী দলের পার্টি অফিসে আগুন ধরিয়ে দিই নি । ওরা যা করেছে, প্রশাসন ব্যবস্থা নেবে । যারা এই পার্টি অফিসে আগুন লাগিয়েছে কাউকে রেয়াত করা হবে না । সবার শাস্তি হবে ।”

এদিন এই প্রতিবাদ সভায় মন্ত্রী চন্দ্রিমা ভট্টাচার্য্য বলেন, “আমরা হিংসায় বিশ্বাস করি না, ওদের হিংসার জবাব আমরা উন্নয়ন দিয়ে দেব ।” আমফান দুর্নীতি প্রসঙ্গে জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক বলেন, “কেউ কেউ আমফান ক্ষতিপূরণের টাকা প্রসঙ্গে দুর্নীতি নিয়ে আমাদের বিরুদ্ধে আঙ্গুল তুলছিল । আমরা জেলায় ১২০০ কর্মীকে শো কস করেছি । দোষ প্রমাণিত হলে বহিষ্কার করা হবে তাদের ।”

হালিশহরের বলদেঘাটা এলাকায় তৃণমূল বিজেপি সংঘর্ষের ঘটনায় যে রাজনৈতিক অস্থিরতা সৃষ্টি হয়েছে, সেখানেই বিজেপির বিরুদ্ধে প্রতিবাদ সভা করলেন উত্তর ২৪ পরগনা জেলা তৃণমূল কংগ্রেসের শীর্ষ নেতৃত্বরা ।

এই প্রতিবাদ সভায় খাদ্যমন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন মন্ত্রী তাপস রায়, চন্দ্রিমা ভট্টাচার্য্য, সাংসদ সৌগত রায়, সুবোধ অধিকারী, পার্থ ভৌমিক সহ অন্যান্যরা ।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।