কলকাতা: জোট রাজনীতি কেমন করে করা উচিত সেটা ভালোভাবেই বুঝতেন জ্যোতি বসু। তার জন্মদিন উপলক্ষে বুধবার সেন্টার ফর সোশ্যাল স্টাডিজ এন্ড রিসার্চ আয়োজিত ভার্চুয়াল স্মারক বক্তৃতা দিতে গিয়ে এমন বার্তা দিয়েছেন সিপিএম সাধারণ সম্পাদক সীতারাম ইয়েচুরি। বর্তমান পরিস্থিতিতে বাংলায় তৃণমূল এবং বিজেপি উভয়কে শত্রু মনে করে যেভাবে বাম এবং কংগ্রেস জোট বাধার কথা ভাবছে সেই সময় ইয়েচুরির এমন বার্তা তাৎপর্যপূর্ণ বলে মনে করছে রাজনৈতিক মহল।

ওই স্মারক বক্তৃতার সময় ইয়েচুরি মনে করিয়ে দিয়েছেন ষাটের দশকে বাংলা কংগ্রেসের সঙ্গে কেমন ভাবে যুক্ত ফ্রন্ট গড়েছিলেন জ্যোতিবাবুরা। তার কথায়, জ্যোতি বসু জোটের রাজনীতি বুঝতেন। ফলে সিদ্ধান্তের ক্ষেত্রে বড় বা ছোট দল এই সব নিয়ে বাছবিচার করতেন না। এজন্য ষাটের দশকে যুক্তফ্রন্ট সরকার গড়েছিলেন অজয় মুখোপাধ্যায়কে মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে সামনে রেখে।

কংগ্রেসের সঙ্গে সিপিএমের বিরোধ বহু দিনের। সেটা খাদ্য আন্দোলন জরুরি অবস্থা সহ বেশ কিছু ইস্যু রয়েছে । আর
এখন সিপিএম কংগ্রেস কাছে আসার চেষ্টা করলে সেইসব প্রসঙ্গ তুলে বিভিন্ন মহল অস্বস্তিতে ফেলছে এই দুই দলকে। সেখানে এহেন পরিস্থিতিতে যুক্তফ্রন্ট তথা বাংলা কংগ্রেস ও অজয় মুখোপাধ্যায়ের প্রসঙ্গ তুলে যেন ভিন্ন বার্তা দিতে চাইলেন সীতারাম ইয়েচুরি।

জ্যোতি বসুর জন্মদিন উপলক্ষে বুধবার রাজ্যের নানা জায়গায় বেশ কিছু কর্মসূচির আয়োজন করা হয়েছে। করোনা মহামারী পরিস্থিতি ও লকডাউনের জন্য গন জমায়েত করা যাচ্ছে না। তাই এবার সিপিএম এমন অনুষ্ঠান করতে সামাজিক মাধ্যমের আশ্রয় নিয়েছে। বুধবার থেকে আগামী কয়েকদিন তার জন্মদিন উপলক্ষে বেশ কিছু কর্মসূচি রয়েছে। প্রমোদ দাশগুপ্ত মেমোরিয়াল ট্রাস্টের উদ্যোগে কলকাতা জেলা কমিটির দপ্তর বা প্রমোদ দাশগুপ্ত ভবনে বুধবার সকালে রক্তদান কর্মসূচি পালন করা হয়। তা ছাড়া সিটু রাজ্য কমিটির উদ্যোগে জ্যোতি বসুর জন্মদিন উপলক্ষে বৃহস্পতিবার থেকে শনিবার তিন দিন ফেসবুক লাইভ এর মাধ্যমে বক্তৃতামালা আয়োজন করা হয়েছে। সিটু‌ রাজ্য কমিটির অফিশিয়াল ফেসবুক পেজ থেকে তা লাইভ সম্প্রচার করা হবে প্রতিদিন রাত আটটার।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ