হায়দরাবাদ: গত বছর লকডাউনের মধ্যেই বাগদান পর্ব সেরে ফেলেছিলেন৷ দ্বিতীয়বার বিয়ের পিঁড়িয়ে বসতে চলেছেন ভারতীয় ব্যাডমিন্টন তারকা জোয়ালা গুট্টা৷ এবার তাঁর জীবন সঙ্গী তামিল অভিনেতা বিষ্ণু বিশাল৷ ২২ এপ্রিল তাঁদের বিয়ের কার্ড মঙ্গলবার সোশাল মিডিয়ায় শেয়ার করে এমনটাই জানিয়েছেন গুট্টা৷

কয়েকদিন আগেই ৩৬ বছরের তামিল অভিনেতা ডাবল স্পেশালিস্টকে বিয়ে করতে চলেছেন, এমনটা নিশ্চিত করার পরই এদিন সোশাল মিডিয়ায় তাঁদের বিয়ের কার্ড পোস্ট করেন ভারতীয় ব্যাডমিন্টনে ডাবল স্পেশালিস্ট গুট্টা৷ শুধু ব্যাডমিন্টন তারকাই নয়, সোশাল মিডিয়ার বিয়ের কার্ড শেয়ার করেছেন অভিনেতা বিশালও৷ কয়েদিন আগে Aranya ছবির pre-release event-এ বিশাল জানিয়েছিলেন, ‘আমরা শীঘ্রই বিয়ে করতে চলেছি৷ আমি এবার তেলেগু জামাই হতে চলেছি৷ আমি অত্যন্ত খুশি৷ বিয়ের দিন শীঘ্রই ঘোষণা করা হবে৷’

বিয়ের কার্ডে লেখা, “With the blessing of our families, it gives us immense joy in sharing the news of our marriage, in a private affair in presence of near & dear – We are getting married. We thank you for all the love you have showered upon is over the years and seek blessings as we embark on this journey of love, loyalty, friendship and togetherness”

বিশালের থেকে বছর দু’য়ের বড় জোয়ালা গত বছর তাঁর ৩৭তম জন্মদিনে জীবনের অন্যতম সেরা গিফট পেয়েছিলেন৷ গত বছর সেপ্টেম্বরে তাঁর জন্মদিনে জনপ্রিয় তামিল অভিনেতা বিষ্ণু বিশালের সঙ্গে বাগদান সেরে ফেললেন দেশের অন্যতম সফল মহিলা ডাবলস শাটলার। জন্মদিনের সেলিব্রেশন এবং অভিনেতার দেওয়া এনগেজমেন্ট রিং’য়ের ছবি পোস্ট করে সেদিন টুইটারে গুট্টা লিখেছিলেন,‘গত রাতে সারপ্রাইজটা দুর্দান্ত ছিল। আজ আমি যখন আমার জীবন নিয়ে ভাবি তখন উপলব্ধি করি জীবনে এগিয়ে চলার জন্য সামনে অনেক কিছু রয়েছে। আমার পরিবার, বন্ধু-বান্ধব এবং কাজ! আমি নিশ্চিত এই জার্নিটা আমার জীবনে একটা অসাধারণ জার্নি হতে চলেছে।’

তবে দু’জনেই এর আগেও জীবনের জার্নি শুরু করেছিলেন৷ ভারতীয় ব্যাডমিন্টন তারকা জোয়ালা বিয়ে করেছিলেন প্রাক্তন শাটলার চেতন আনন্দকে৷ কিন্তু তাঁর সঙ্গে গুট্টার বিবাহ স্থায়ী হয়নি৷ ২০১১ সালে দু’জনের মধ্যে ডিভোর্স হয়ে যায়৷ অভিনেতা বিষ্ণুও বিয়ে করেছিলেন রজিনিকে৷ তাঁদের একটি ছেলেও রয়েছে৷ কিন্তু ২০১৮ সালে অভিনেতার ডিভোর্স হয়ে যায়৷ ২০১৭ সালের পর পেশাদার ব্যাডমিন্টন সার্কিটে আর দেখা যায়নি গুট্টাকে। অবসর ঘোষণা না-করলেও আপাতত হায়দরাবাদে তাঁর অ্যাকাডেমি নিয়েই ব্যস্ত ‘অর্জুন’ জয়ী এই শাটলার৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.