হরিদ্বার: করোনার সংক্রমণ প্রতিদিন বাড়ছে। দৈনিক দেশে আক্রান্তের সংখ্যা ছাড়িয়েছে ২ লক্ষ। কুম্ভ মেলা থেকেও গত কয়েক দিন যাবৎ সংক্রমণ বাড়ার খবর পাওয়া যাচ্ছিল। এই পরিস্থিতিতে এই মেলাকে প্রতীকী করার ডাক দিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। জুনা আখাড়ার তরফে ঘোষণা করা হল এবার তারা করোনার কথা মাথায় রেখে কুম্ভ মেলায় আর অংশ নেবে না।

শনিবার জুনা আখাড়ার তরফে একটি বিবৃতি জারি করে এই খবর জারি করা হয়েছে। তারা স্পষ্ট জানিয়েছে, করোনা পরিস্থিতি উত্তরোত্তর বৃদ্ধি পাচ্ছে। এই পরিস্থিতিতে কুম্ভ মেলায় আর তারা অংশ নেবে না। জুনা আখাড়ার মহামন্দালেশ্বর স্বামী অবদেশানন্দ গিরি টুইটারে জানিয়েছেন, মানুষের সুস্থ থাকা তাঁদের কাছে অগ্রাধিকার পায়। করোনা সংক্রমণের সংখ্যা যেভাবে প্রতিদিন বৃদ্ধি পাচ্ছে তার দিকে তাকিয়েই জুনা আখাড়া সিদ্ধান্ত নিয়েছে তারা আর কুম্ভ মেলায় অংশ নেবে না। সূত্রের খবর, মেলা যোগ দেওয়া অন্যান্য আখাড়াও মেলা থেকে ফিরে যাওয়ার কথা ভাবছে।

প্রসঙ্গত, এদিন সকালেই করোনা পরিস্থিতিতে কুম্ভ মেলাকে প্রতীকী করার আবেদন জানিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। শনিবার নিজের ট্যুইটার হ্যান্ডেলে তিনি লেখেন, “এবার যেন করোনা মহামারীর কথা মাথায় রেখেই প্রতীকী ভাবে কুম্ভমেলা পালন করা হোক।” তিনি আরও বলেন, “আচার্য মহামণ্ডলেশ্বর পূজ্য স্বামী অবধেশানন্দ গিরিজির সঙ্গে আজ ফোনে কথা বলেছি। সমস্ত সন্তদের স্বাস্থ্যের ব্যাপারে খোঁজ নিয়েছি। প্রশাসনের সঙ্গে সন্ন্যাসীরা সহযোগিতা করছেন। এর জন্য আমি তাঁদের ধন্যবাদ জানিয়েছি।” এরপর এদিন বিকেলেই জুনা আখাড়ার তরফে জানানো হল তাঁর আর কুম্ভ মেলায় অংশ নেবে না। করোনা পরিস্থিতির দিকে দৃষ্টি রেখেই তাদের এই সিদ্ধান্ত।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.