কলকাতা: ‘বাংলায় মমতা দিদির সরকার দলিত বিরোধী’৷ আজ নিউটাউনে দলীয় সভায় যোগ দিয়ে রাজ্য়ের শাসকদল তৃণমূলকে এমনই ভাষায় আক্রমণ বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জেপি নাড্ডার৷ এদিন সভামঞ্চেই বাবাসাহেব আম্বেদকরের ছবিতে মালা দিযে ও প্রদীপ জ্বালিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন নাড্ডা৷ ‘আম্বেদকর আগামীর পথ চলার প্রেরণা’, সংবিধান প্রণেতাকে শ্রদ্ধা জানিয়ে মন্তব্য় জেপি নাড্ডার৷

আম্বেদকর জয়ন্তীতে আজ রাজ্য়ে ঠাসা কর্মসূচি জেপি নাড্ডার৷ এদিন সকালে প্রথমেই নিউটাউনের কদমপুরে দলীয় সভায় যোগ দেন জেপি নাড্ডা৷ দলের সর্বভারতীয় সভাপতির সভায় এদিন স্থানীয় বিজেপি নেতা-কর্মীদের উপস্থিতি ছিল চোখে পড়ার মতো৷ এদিন প্রথম মঞ্চে উঠেই বাবাসাহেব আম্বেদকরের ছবিতে মালা দেন নাড্ডা৷ প্রদীপ জ্বালিয়ে দেশের সংবিধানের রচয়িতার জন্মদিনে শ্রদ্ধাজ্ঞাপন করেন তিনি৷ পরে তিনি বলেন, ‘‘আম্বেদকর আগামীর পথ চলার প্রেরণা৷ আম্বেদকর পথ প্রদর্শক ছিলেন৷ লড়াই থেকে কখনও তিনি সরে যাননি৷’ নির্বাচনী সভায় বক্তব্য রাখতে গিয়ে এদিন ফের সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন বা সিএএ (CAA) নিয়ে ফের মুখ খোলেন নাড্ডা৷ বাবাসাহেব আম্বেদকরও এক সময় নাগরিকত্ব আইন নিয়ে সোচ্চার হন বলে দাবি করেন নাড্ডা৷

পঞ্চম দফার নির্বাচনের আগে আজই শেষ প্রচার৷ শেষবেলার প্রচারে এসে আজ ফের রাজ্যের শাসকদল তৃণমূলকে একহাত নেন নাড্ডা৷ তৃণমূল নেতৃত্বাধীন রাজ্যের সরকার দলিত-বিরোধী বলে তোপ দাগেন তিনি। সিএএ নিয়েও মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকারকে কাঠগড়ায় তুলেছেন বিজেপির এই শীর্ষ নেতা।

তিনি বলেন, ‘‘সিএএ নিয়ে বিরোধিত করছে মমতা দিদির সরকার৷ বর্তমান সরকার দলিত বিরোধী কাজ করছে৷ মতুয়া,নমশুদ্র, রাজবংশীরা দেশেরই অংশ৷ তাঁদের নাগরিকত্ব আমরাই দেব৷ স্ট্যান্ডআপ ইন্ডিয়ার মাধ্যমে দলিতদের সুবিধা দেওয়া হবে৷’’এরই পাশাপাশি চতুর্থ দফার ভোটে কোচবিহারের শীতলকুচির ঘটনা প্রসঙ্গেও মুখ খুলেছেন নাড্ডা৷ শীতলকুচিতে কেন্দ্রীয় বাহিনীর গুলিতে চারজনের মৃত্যুকে দুঃখজনক আখ্যা দিয়েও মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে নিশানা করেন নাড্ডা৷ তাঁর কথায়, ‘‘সেদিন আনন্দ বর্মনের মৃত্যুর প্রসঙ্গে নীরব মমতা৷ কী অন্যায় ছিল তাঁর? জীবনে প্রথমবার ভোট দিতে এসেছিল।’’

আজ বাংলায় একগুচ্ছ কর্মসূচি নাড্ডার৷ নিউটাউনের সভা ছাড়াও রাজ্যে একাধিক জনসভা, রোড শো করবেন নাড্ডা৷ পূর্ব বর্ধমানের জামালপুর মঙ্গলকোটে জনসভা করবেন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি৷ বনগাঁর প্রতাপগড়ে দলীয় প্রার্থীর সমর্থনে বর্ণাঢ্য রোড শোতেও হাজির থাকবেন গেরুয়া দলের অন্য়তম এই শীর্ষ নেতা৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.