স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: জয়নগর হত্যাকাণ্ডে দিল্লি থেকে গ্রেফতার করা হল মূল অভিযুক্ত বাবুয়া সহ ৩ জনকে৷ গত বছর ১৩ ডিসেম্বর দক্ষিণ ২৪ পরগণার জয়নগর দুর্গাপুরের একটি পেট্রোল পাম্পে দুষ্কৃতীরা বোমাবাজি ও এলোপাথাড়ি গুলি করে পালিয়ে যায়৷ দুষ্কৃতীদের গুলিতে খুন এক তৃণমূল নেতাসহ তিন৷ ঘটনাকে কেন্দ্র করে চাঞ্চল্য ছড়ায়৷ পুলিশের হাত থেকে তদন্তের দায়িত্ব যায় সিআইডি-র হাতে৷ শুক্রবার নয়াদিল্লির নেহরু বিহার থেকে তাদের গ্রেফতার করে সিআইডি৷

জয়নগরকাণ্ডের পর থেকেই গা ঢাকা দিয়ে ঘুরছিল তারা৷ তাদের মোবাইলের টাওয়ার লোকেশন করে হানা দেয় সিআইডি৷ ধৃত তিনজনকে শুক্রবারই আদালতে তোলা হবে জানা গিয়েছে৷

পড়ুন: অন্ধ্র, বাংলার পর এবার সিবিআই তদন্তে ‘না’ ছত্তিশগড়ের

প্রসঙ্গত, গত বছর ডিসেম্বরের ১৩ তারিখে দুষ্কৃতীদের গুলিতে খুন এক তৃণমূল নেতাসহ তিন৷ মৃতদের মধ্যে একজন জয় হিন্দ বাহিনীর ব্লক সভাপতি সৈফুদ্দিন৷ সন্ধ্যা ৭.৩০ মিনিট নাগাদ থানার কিছুটা দূরেই ঘটনাটি ঘটে৷ অল্পের জন্য প্রাণে বেঁচে যান স্থানীয় তৃণমূল বিধায়ক বিশ্বনাথ দাস৷ ঘটনার পর ঘটনাস্থলে যায় বিশাল পুলিশ বাহিনী৷

জয়নগরের বিধায়ক বিশ্বনাথ দাস সারা দিনের নির্ধারিত কর্মসূচি সেরে সন্ধ্যায় বহড়ু পার্টি অফিসে যাচ্ছিলেন৷ প্রতিদিন তিনি জয়নগর দুর্গাপুরের পেট্রোল পাম্পের কাছে চা খেতে যান৷ বৃহস্পতিবার তিনি চা খেতে না গিয়ে গাড়ি থেকে নেমে বহড়ু পার্টি অফিসে যান৷ আর ওই গাড়িটি চালক পেট্রোল পাম্পে তেল ভরতে যান৷ গাড়িটি পাম্পে দাঁড়াতেই বেশ কয়েকজন দুষ্কৃতী গাড়িটিকে ঘিরে ফেলে বোমাবাজি করতে শুরু করে৷ এরপর দুষ্কৃতীরা এলোপাথাড়ি গুলি চালাতে থাকে৷ গুলিতে নিহত হন বিধায়কের গাড়ির চালক বাবু৷ এছাড়া জয় হিন্দ বাহিনীর ব্লক সভাপতি সৈফুদ্দিন ও স্থানীয় এক বাসিন্দা৷ গাড়ি থেকে নেমে যাওয়ায় অল্পের জন্য প্রানে বেঁচে যান বিধায়ক বিশ্বনাথ দাস৷

পড়ুন: শিক্ষাক্ষেত্রে শৃঙ্খলা ফেরাতে রিভিউ বৈঠকের ডাক রাজ্য সরকারের

স্থানীয় বিধায়কের দাবি, দুষ্কৃতীদের টার্গেট ছিলেন তিনি৷ তাঁকে খুন করার জন্যই দুষ্কৃতীরা এসেছিল৷ ভাগ্যক্রমে তিনি বেঁচে গিয়েছেন৷ প্রতিদিন জয়নগর দুর্গাপুরের পেট্রোল পাম্পের কাছে চা খেতে যান৷ এদিন চা খেতে না গিয়ে স্থানীয় পার্টি অফিসে যাই৷ দুষ্কৃতীরা ভেবেছিলেন গাড়িতে আমি আছি৷ তাই ভেবে দুষ্কৃতীরা গাড়ি ঘিরে এলোপাথারি গুলি চালাতে থাকে৷ তিনজনকে গুলি করে খুন করে বাইকে করে পালিয়ে যায়৷

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ