বেঙ্গালুরু: ট্র্যাকের উপর দিয়ে হাই স্পিডে ট্রেন চলছে। আর সেই ট্রেনের সামনে রাখা এক গ্লাস জল। কানায় কানায় ভরা। ট্রেন চললেও জল চলকে পড়ছে না এতটুকু।

শনিবার এমনই এক ভিডিও শেয়ার করলেন রেলমন্ত্রী। আর মুহূর্তে ভাইরাল সেই ভিডিও।

আসলে বেঙ্গালুরু-মাইসোর রেল লাইনে কাজ হওয়ার পর রেল লাইন মসৃণ হয়ে গিয়েছে, এমনটাই বোঝাতে চেয়েছেন পীযূষ গোয়েল।

রেলমন্ত্রীর পোস্ট করা ওই ভিডিয়োতে দেখা যাচ্ছে, বেঙ্গালুরু-মাইসুরু রুটে দুরন্ত গতিতে দৌড়চ্ছে ট্রেন। ঝাঁকুনি সত্বেও টেবিলে রাখা জলভর্তি গ্লাস থেকে এক ফোঁটা জলও বাইরে পড়ছে না।

টুইটে রেলমন্ত্রী জানিয়েছেন, সফর এতটাই মসৃণ ছিল যে টেবিলে রাখা জলভর্তি গ্লাস থেকে এক ফোঁটা জলও বাইরে পড়ছে না। এর কারণ অত্যন্ত যত্ন নিয়ে বেঙ্গালুরু-মাইসুরু লাইনের মেরামতির কাজ করা হয়েছে গত কয়েক মাসে।

রেল সূত্রে জানা গিয়েছে, ওই ১৩০ কিলোমিটার পথে গত ৬ মাসে খুঁটিয়ে মেরামতির কাজ করা হয়েছে। তার ফল মিলেছে। এতে খরচ হয়েছে ৪০ কোটি টাকা।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।