প্রতীকী ছবি

লখনউ: ফের আক্রান্ত সাংবাদিক। এবারেও ঘটনাস্থল সেই যোগী আদিত্যনাথ পরিচালিত রাজ্য উত্তর প্রদেশ।

এক সাংবাদিককে পেটানোর অভিযোগ উঠল উত্তর প্রদেশের জিআরপি কর্মীদের বিরুদ্ধে। সাদা পোশাকের ওই কেন্দ্রীয় সরকারি কর্মীদের হাতে সাংবাদিকের আক্রান্ত হওয়ার ঘটনার মুহূর্ত ক্যামেরাবন্দি করে ঘটনাস্থলে উপস্থিত সংবাদকর্মীরা।

মঙ্গলবার রাতের দিকে ঘটনাটি ঘটেছে উত্তর প্রদেশের শামলি এলাকায়। ওই দিন রাতেই সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশিত হয় সেই মারধোরের ভিডিও। যার জেরে স্বভাবতোই অস্বস্তিতে রেল দফতর। যদিও এই প্রতিবেদন প্রকাশিত হওয়া পর্যন্ত রেলের পক্ষ থেকে এই বিষয়ে কোনও বিবৃতি বা বক্তব্য দেওয়া হয়নি।

ঘটনার সূত্রপাত একটি রেল দুর্ঘটনাকে কেন্দ্র করে। মঙ্গলবার রাত আটটা বেজে ৫০ মিনিট নাগাদ একটি মালগাড়ি লাইনচ্যুত হয়ে যায়। দিল্লি থেকে ওই মালগাড়িতে করে পাথর নিয়ে সাহারনপুরে পাথর নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল। আচমকা লাইনচ্যুত হয়ে যায় ওই মালগাড়িটি। এই ঘটনার জেরে ক্ষতিগ্রস্ত হয় ২০০ মিটারের রেল ট্র্যাক। একই সঙ্গে একাধিক প্যাসেঞ্জার ট্রেনের যাত্রা সাময়িকভাবে বন্ধ করে দেওয়া হয় রেলের পক্ষ থেকে।

এই ঘটনায় বড় কোনও অঘটন ঘটেনি। কিন্তু রেলের স্বাভাবিক পরিষেবা ব্যাহত হয়। যার জেরে ভোগান্তির শিকার হতে হয় যাত্রীদের। একাধিক প্যাসেঞ্জার ট্রেনের পরিষেবা স্থগিত হয়ে যায় এবং অন্যান্য অনেক ট্রেন চলাচলের ক্ষেত্রেও বিঘ্ন ঘটে। যদিও প্রায় এক ঘণ্টার মধ্যেই স্বাভাবিক হয়ে যায় পরিষেবা। সাড়ে ৯টার মধ্যে পরিষেবা স্বাভাবিক হয়ে গিয়েছিল বলে দাবি করেছে রেল দফতর।

ধিমানপুরার যে এলাকায় মালগাড়িটি লাইনচ্যুত হয়েছিল সেই জায়গায় খবর সংগ্রহ করতে গিয়েছিলেন সাংবাদিকেরা। সেখানেই এক সাংবাদিকের উপরে চড়াও হন জিআরপি কর্মীরা। আক্রান্ত সাংবাদিক বলেছেন, “হামলাকারী জিআরপি কর্মীরা সবাই সাদা পোশাকে ছিলেন। একজন আমায় মেরে মাটিতে ফেলে দেয় এবং ক্যামেরা ভাঙার চেষ্টা করে। উঠে দাঁড়ালে ফের আমায় মারা হয়।”

এখানেই শেষ হয়ে যায়নি কেন্দ্রীয় সরকারি কর্মীদের অত্যাচার। ওই সাংবাদিক আরও জানিয়েছেন যে তাঁকে দির্ঘক্ষণ আটকে রাখা হয় এবং জামা কাপড় খুলে নেওয়া হয়েছিল। শুধু তাই নয়, জিআরপি কর্মীরা ওই সাংবাদিকের গায়ে প্রস্রাব করে দিয়েছিল বলেও অভিযোগ করেছেন ওই সাংবাদিক।

গত সপ্তাহেই এক সাংবাদিককে গ্রেফতার করা হয়েছে উত্তর প্রদেশে। সোশ্যাল মিডিয়ায় মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথের বিরুদ্ধে পোস্ট করার কারণে তাঁকে গ্রেফতার করেছে ওই রাজ্যের পুলিশ। যা নিয়ে সমালোচনা শুরু হয়েছে বিভিন্ন মহলে।