হেডিংলি: স্টিভ স্মিথহীন অস্ট্রেলিয়া ব্যাটিং অর্ডারের কাছে চলতি অ্যাশেজের তৃতীয় টেস্ট রীতিমতো চ্যালেঞ্জের। প্রথম দু’টি টেস্টে মিডল অর্ডারে ভরসা জোগানো প্রাক্তন অধিনায়ককে ছাড়া ইংরেজ পেসারদের বিরুদ্ধে কেমন লড়াই করেন অজি ব্যাটসম্যানরা, তৃতীয় টেস্টের প্রথমদিন সেটাই ছিল লক্ষণীয় বিষয়। ওপেনার ডেভিড ওয়ার্নার ও স্মিথের পরিবর্ত ল্যাবুশেনের ব্যাটিং খানিক ভরসা জোগালেও তৃতীয় টেস্টের প্রথমদিন হেডিংলি আর্চারময়।

দ্বিতীয় ম্যাচেই টেস্ট কেরিয়ারের প্রথম ৫ উইকেট সংগ্রহ করে নিলেন কৃষ্ণাঙ্গ এই বোলার। আর্চারের ছয় উইকেটে তৃতীয় টেস্টে অস্ট্রেলিয়ার প্রথম ইনিংস শেষ ১৭৯ রানে। ‘লর্ডসের চেয়ে বিশেষ আলাদা কিছুই করিনি। কিন্তু হেডিংলির পিচ কিছুটা বোলারদের সহায়ক হওয়ায় তার সুবিধা পেয়েছি।’ ছয় উইকেট নিয়ে জানালেন আর্চার। বৃষ্টিবিঘ্নিত প্রথমদিনের প্রথম সেশনে এদিন মাত্র ৪ ওভার খেলা সম্ভব হয়। যদিও তারমধ্যেই পিটার হ্যান্ডসকম্বের পরিবর্ত হিসেবে হেডিংলে টেস্টে সুযোগ পাওয়া মার্কাস হ্যারিসকে প্যাভিলিয়নে ফেরৎ পাঠান আর্চার।

মধ্যাহ্নভোজের বিরতির সামান্য পরে আর্চারের দ্বিতীয় শিকার হন উসমান খোয়াজা। ২৫ রানে ২ উইকেট হারানোর পর তৃতীয় উইকেটে দলের হাল ধরেন আরেক ওপেনার ডেভিড ওয়ার্নার ও মার্নাস ল্যাবুশেন। প্রথম দু’টেস্টের ব্যর্থতা কাটিয়ে সিরিজে প্রথমবার দু’অঙ্কের রানে পৌঁছন ওয়ার্নার। চলতি আশেজে প্রথম অর্ধশতরানে (৬১) দলের ব্যাটিংকে দারুণভাবে ভরসা দেন প্রাক্তন ডেপুটি। বিশ্বস্ত সঙ্গী হিসেবে ওয়ার্নারকে দুরন্ত সঙ্গ দেন ল্যাবুশেন। তৃতীয় উইকেটে এই দুই ব্যাটসম্যানের জুটিতে ১১১ রানে সাময়িক ব্যাকফুটে চলে যায় ইংল্যান্ড।

কিন্তু তিন রানে অজিদের তিন উইকেট তুলে নিয়ে ম্যাচে ফের প্রত্যাঘাত ছুঁড়ে দেন ইংরেজ বোলাররা। এরপর আর ব্যাটিং অর্ডারে ধস সামলে ওঠা সম্ভব হয়নি অস্ট্রেলিয়া ব্যাটসম্যানদের। দফায়-দফায় বৃষ্টিবিঘ্নিত দিনের বাকি সময়টাও আর্চারের নেতৃত্বে দাপট দেখিয়ে যান ইংরেজ বোলাররা। যার ফলে হুড়মুড়িয়ে ভেঙে পড়ে অস্ট্রেলিয়ার লোয়ার ব্যাটিং অর্ডার। সর্বোচ্চ ৭৪ রান করে আউট হন ল্যাবুশেন। ট্রেভিস হেড, ম্যাথু ওয়েড ও প্যাট কামিন্স ফেরেন শুন্য রানে।

১৭.১ ওভার হাত ঘুরিয়ে ৪৫ রান দিয়ে ৬ উইকেট দখল করে নেন আর্চার। মূলত বার্বাডোজজাত এই পেসারের দাপটেই ভেঙে পড়ে অস্ট্রেলিয়ার ব্যাটিং লাইন আপ। ২ উইকেট নেন স্টুয়ার্ট ব্রড। একটি করে উইকেট ক্রিস ওকস ও বেন স্টোকসের। ৫২.১ ওভারে অস্ট্রেলিয়া ১৭৯ রানে শেষ হওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই প্রথমদিনের খেলার ইতি ঘটে।