ওয়াশিংটন: শপথ গ্রহণের সঙ্গেই মার্কিন মুলুকে সূচনা হল বাইডেন-কমলা যুগের৷ সাক্ষী থাকল গোটা বিশ্ব৷ শপথ নিয়েই ঐক্যের বার্তা দিলেন তিনি৷ বললেন, ‘‘আমি সমগ্র আমেরিকাবাসীর প্রেসিডেন্ট৷’’

এদিন স্ত্রীর পাশে দাঁড়িয়ে ৪৬তম মার্কিন প্রেসিডেন্ট হিসাবে শপথ নেন জো বাইডেন৷ শপথ গ্রহণের পর জাতির উদ্দেশে ভাষণ দেন তিনি৷ প্রেসিডেন্ট বলেন, ‘‘আজ কোনও প্রার্থীর জয় নয়৷ আজ গণতন্ত্রের জয়৷ জনগণ এবং জনগণের ইচ্ছার জয়৷ আমরা জানি গণতন্ত্র কতটা মূল্যবান৷ বন্ধুরা আজ এই মুহূর্তে গণতন্ত্র বিরাজ করছে৷’’
বাইডেনের শপথ গ্রহণের ঐতিহাসিক ক্ষণের সাতটি উল্লেখযোগ্য মুহূর্ত-

• এদিন শপথগ্রহণ অনুষ্ঠানে জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশন করেন লেডি গাগা৷ শুধু তাই নয়, মঞ্চ মাতান জনপ্রিয় সঙ্গীত শিল্পী গার্থ ব্রুকস৷ পারফর্ম করেন ‘অ্যামেজিং গ্রেস’৷

• এদিন শপথগ্রহণ অনুষ্ঠানে অংশ নিয়েছিলেন বিদায়ী ভাইস-প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্স৷ তবে উপস্থিত ছিলেন না ডোনাল্ড ট্রাম্প ও তাঁর পরিবার৷

• কোভিড-১৯ এ প্রাণ হারানো মার্কিন নাগরিকদের জন্য প্রার্থনা করেন বাইডেন৷ করোনার দাপটে সে দেশে মৃত্যু হয়েছে ৪ লক্ষ মানুষের৷

• ১২৭ বছর পুরনো পারিবারিক বাইবেলের উপর হাত দিয়ে শপথ নেন বাইডেন৷ শপথ গ্রহণের সময় যা ধরে রেখেছিলেন তাঁর স্ত্রী জিল বাইডেন৷

• পাশে থেকে সমর্থন জুগিয়ে যাওয়ার জন্য স্ত্রী জিলকে ধন্যবাদ জানান বাইডেন৷ অন্যদিকে কমলা হ্যারিস তাঁর এই সাফল্য তাঁর জীবনের সঙ্গে জড়িত সকল নারীকে উৎসর্গ করেন৷

• ইতিহাস গড়ে কমলা হ্যারিসকে শপথবাক্য পাঠ করান হিস্পানিক সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি সোনিয়া সোটোমায়োর৷

• শিরলি চিশলমকে শ্রদ্ধা জানিয়ে এদিন বেগুনি রং-এর পোশাক পরেছিলেন হ্যারিস৷
প্রেসিডেন্ট পদে শপথ নেওয়ার পর টুইট করে বাইডেনকে শুভেচ্ছা জানান প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী৷ এক সঙ্গে কাজ করে ভারত-মার্কিন সম্পর্ককে নয়া উচ্চতায় নিয়ে যাওয়ার কথা বলেন তিনি৷ কমলা হ্যারিসকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন উপরাষ্ট্রপতি বেঙ্কাইয়া নাইডু৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।