চাকরি
চাকরির খবর

কলকাতা:  ওয়েস্ট বেঙ্গল হেলথ রিক্রুটমেন্ট বোর্ড অ্যাসিসটেন্ট সুপারিন্টেনডেন্ট(নন মেডিক্যাল) গ্রেড ২ পদে নিয়োগের জন্য বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে। জানা গিয়েছে অস্থায়ী ভিত্তিতে নিয়োগ কড়া হলেও পরবর্তীকালে তা স্থায়ী করা হবে। আগ্রহী প্রার্থীদের দ্রুত আবেদন করতে জানানো হচ্ছে।

আবেদনের শেষ তারিখ– ৩০.৭.২০২০। মোট শূন্যপদ- ১০৫।

শিক্ষাগত যোগ্যতা- যে কোন বিষয় নিয়ে স্নাতক হতে হবে। পোস্ট গ্র্যাজুয়েট ডিগ্রি বা ডিপ্লোমা যে কোন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে থাকতে হবে। এছাড়া স্থানীয় বাংলা ভাষা লিখতে এবং বলতে জানতে হবে। তবে দু বছরের কাজের অভিজ্ঞতা থাকলে অগ্রাধিকার দেওয়া হবে।

বয়স- ৩৬ বছর বয়সের মধ্যে থাকতে হবে। বেতন-৯০০০-৪০৫০০। নিয়ম মাফিক তফসিলি জাতি উপজাতিদের ক্ষেত্রে বয়সে ছাড় দেওয়া হবে। প্রার্থীদের শিক্ষাগত যোগ্যতার ভিত্তিতে যাচাই কড়া হবে।

এছাড়া ইন্টারভিউ নেওয়া হবে। তারিখ এবং ইন্টারভিউ সংক্রান্ত সময় পরবর্তী কালে জানানো হবে। তবে আগ্রহহী প্রার্থীদের জন্য www.wbhrb.ইন এই ওয়েবসাইটে চোখ রাখতে হবে।

প্রার্থীদের আবেদন ফি বাবদ ২১০ টাকা দিতে হবে। এই ফি নেট ব্যাংকিং এর মাধ্যমে দেওয়া যাবে। তবে তফসিলি জাতি উপজাতিদের ক্ষেত্রে কোন ফি দিতে হবে না। প্রার্থীদের অনলাইনে অফিশিয়াল ওয়েবসাইটের মাধ্যমে আবেদন করতে হবে।

ইন্টারনেটে পাওয়া তথ্যের ভিত্তিতে এই প্রতিবেদন লেখা হয়েছে। আবেদনের আগে অবশ্যই ভালো করে ওয়েবসাইটটি দেখে নিন। কিংবা স্থানীয় কোনও অফিসে গিয়ে এই বিষয়ে আরও বিস্তারিত ভাবে জেনে নিন। আবেদনের আগে অবশ্যই ভালো করে সমস্ত তথ্য জানা প্রয়োজন।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

কোনগুলো শিশু নির্যাতন এবং কিভাবে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো যায়। জানাচ্ছেন শিশু অধিকার বিশেষজ্ঞ সত্য গোপাল দে।