চাকরির বাজার খুব খারাপ। স্নাতক স্নাতকোত্তর পাশ করে ছাত্রছাত্রীদের একটি সম্মানজনক চাকরি জোগাড় করতে কালঘাম ছুটছে। যাঁরা চাকরি করতেন করোনা কালে দীর্ঘ লকডাউন ও অর্থনীতির মন্দার ফলে অনেক বেসরকারি সংস্থা কর্মী ছাঁটাইয়ের পথে হেঁটেছেন। ফলে চাকরি চলে গেছে অনেকেরই। এই পরিস্থিতিতে চাকরির নিরাপত্তা ও অন্যান্য সুযোগ সুবিধার জন্য সরকারি চাকরির প্রতি ঝোঁক ক্রমাগত বাড়ছে।

ডাক্তারি বা নার্সিং নিয়ে যাঁরা পড়াশুনা করেছেন তাদের জন্য রয়েছে চাকরির সুযোগ। কলকাতা পুরসভা ও ন্যাশনাল আরবান হেল্থ মিশনের আওতায় মেডিক্যাল অফিসার, পার্ট টাইম মেডিক্যাল অফিসার ও নার্স পদে নিয়োগ সংক্রান্ত খবর সামনে এসেছে। নিয়োগ হবে সম্পূর্ণ চুক্তির ভিত্তিতে। ইন্টারভিউর মাধ্যেমে হবে প্রার্থী বাছাই। মেডিক্যাল অফিসার পদে নিয়োগের ইন্টারভিউ হবে ১৭ মে ২০২১, পার্ট টাইম মেডিক্যাল অফিসার পদে নিয়োগের ইন্টারভিউ হবে ২৪ মে ২০২১, এবং নার্স পদে নিয়োগের ইন্টারভিউ সংক্রান্ত তারিখ এখনো প্রকাশিত হয়নি।

১. মেডিক্যাল অফিসার: এই পদে আবেদন করার জন্য মেডিক্যাল কাউন্সিল ওফ ইন্ডিয়া অনুমোদিত কোনো প্রতিষ্ঠান থেকে এমবিবিএস ডিগ্রি ও এক বছরের বাধ্যতামূলক ইন্টার্নশিপ করে থাকতে হবে। বেতন : ৬০,০০০ টাকা প্রতি মাসে। শূন্য পদ ৫০ টি।

২. পার্ট টাইম মেডিক্যাল অফিসার: এই পদে আবেদন করার জন্য মেডিক্যাল কাউন্সিল ওফ ইন্ডিয়া অনুমোদিত কোনো প্রতিষ্ঠান থেকে এমবিবিএস ডিগ্রি ও এক বছরের বাধ্যতামূলক ইন্টার্নশিপ করে থাকতে হবে। বেতন : ২৪,০০০ টাকা প্রতি মাসে। শূন্য পদ ৭১ টি।

৩. স্টাফ নার্স: এই পদের জন্য প্রার্থীকে ইন্ডিয়ান নার্সিং কাউন্সিল বা পশ্চিমবঙ্গ নার্সিং কাউন্সিল অনুমোদিত কোনো প্রতিষ্ঠান থেকে GNM ট্রেনিং কোর্স পাশ করতে হবে অথবা বিএসসি নার্সিং কোর্স পাশ করে থাকতে হবে। এবং অবশ্যই বাংলা ভাষায় সাবলীল হতে হবে। বেতন: ২৫,০০০ টাকা প্রতি মাসে। শূন্য পদ ২০৫ টি।

আবেদন করার পদ্ধতি ও বাকি বিষয়ে বিস্তারিত জানতে kmc.gov.in এই ওয়েবসাইট দেখুন।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.