স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: শহরের জঞ্জাল ও রাস্তা সাফাইয়ের কাজে ৮৫৮ জনকে নিয়োগ করতে চলেছে কলকাতা পুরসভা। পুরসভার অধীনে থাকা ১৪৪টি ওয়ার্ডকে আরও বেশি করে জঞ্জালমুক্ত রাখতে কাজ করবেন এই কর্মীরা।

এদিকে শহরে করোনার সংক্রমণ রোখা অন্যদিকে বর্ষায় ডেঙ্গু-ম্যালেরিয়ার মতো মশাবাহিত রোগের মোকাবিলা, এই দুটোই এখন কলকাতা পুরসভার স্বাস্থ্য বিভাগের কাছে একটা বড় চ্যালেঞ্জ।

সেই কারণেই একজন মজদুরকে নিয়োগ করতে চলেছে পুর কর্তৃপক্ষ। এরা কলকাতার ১৪৪টি ওয়ার্ডে নিয়মিত জঞ্জাল সাফাই করবে। সকালে বাড়ি বাড়ি গিয়ে কঠিন বর্জ্য সংগ্রহ করা, তা স্থানীয় ভ্যাট কিংবা কমপ্যাক্টরে জমা করবেন তাঁরা। সেইসঙ্গে রাস্তা সাফাইয়ের কাজেও নামানো হবে তাঁদের।

পুরসভা সূত্রে জানা গিয়েছে, ওয়েস্ট বেঙ্গল মিউনিসিপ্যাল সার্ভিস কমিশনের মাধ্যমে এই নিয়োগ হবে। আগামী ৩১ আগস্টের মধ্যে কমিশনের ওয়েবসাইট (www.mscwb.org) গিয়ে অনলাইনে আবেদন করতে হবে। এই নিয়োগের ক্ষেত্রে সুনির্দিষ্ট শিক্ষাগত যোগ্যতামান নেই।

বাংলা-ইংরেজিতে লিখতে ও কথা বলতে সাবলীল হলেই পরীক্ষায় বসার ছাড়পত্র মিলবে। জানা গিয়েছে, নিয়োগের জন্য প্রথমে একটি লিখিত পরীক্ষা হবে।

সফল প্রার্থীদের ডাক পড়বে চূড়ান্ত ইন্টারভিউতে। নির্বাচিত মজদুররা রাজ্যের গ্রুপ-ডি পদমর্যাদার কর্মীদের সমান সুযোগ-সুবিধা পাবে বলে জানিয়েছে পুর কর্তৃপক্ষ। করোনা আবহে পুরসভার কাজ কয়েকগুণ বেড়েছে। সম্প্রতি তারা সিদ্ধান্ত নিয়েছে, পুর এলাকার সব বাজারে ধারাবাহিকভাবে অ্যান্টিজেন টেস্ট করা হবে৷ এতে সংক্রমণ কিছুটা ঠেকানো যাবে বলে মনে করছে পুরসভা৷

কলকাতা পুরসভার অন্তর্গত ৪৭টি বাজার রয়েছে৷ জানা গিয়েছে, চেতলা হাট,হরিসাহার হাট,পাতিপুকুর পাইকারি মাছ বাজার সহ বেশ কয়েকটি বাজারে সংক্রমণ ধরা পড়ে৷ যার জেরে কিছুদিন ওই বাজার বন্ধ রাখা হয়েছিল৷ এবার প্রতিটি বাজার এলাকায় প্রতিদিন ৬০ থেকে ১০০ জন বিক্রেতার বিনামূল্যে করোনা পরীক্ষা করবে পুরসভা৷

পচামড়াজাত পণ্যের ফ্যাশনের দুনিয়ায় উজ্জ্বল তাঁর নাম, মুখোমুখি দশভূজা তাসলিমা মিজি।