নয়াদিল্লি: রবিবার রাতে দিল্লির জহরলাল নেহেরু বিশ্ববিদ্যালয়ের সবরমতি গার্লস হোস্টেলে ঢুকে দুষ্কৃতীদের আক্রমণ করার পর থেকে উত্তপ্ত হয়ে রয়েছে গোটা দেশ। প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে পুলিশি পদক্ষেপ নিয়েও। আর এই ঘটনার পর থেকে প্রতিবাদ স্বরূপ রাস্তায় নেমেছে কলকাতার যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে শুরু করে রাজ্যর বেশ কিছু বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়ুয়ারা।

একই সঙ্গে সোমবার দেশজুড়ে প্রতিবাদ বিক্ষোভের ডাক দিয়েছে এসএফআইও। যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রদের পাশাপাশি আইআইটি বম্বে এবং এফটিআইআই পুনের ছাত্রা রাস্তায় নেমে প্রতিবাদ করা শুরু করেছে। একটাই দাবি দ্রুত শাস্তি দিতে হবে অভিযুক্তদের।

বিগত কয়েকদিন ধরেই জেএনইউয়ের পড়ুয়ারা ফি বৃদ্ধি-সহ কর্তৃপক্ষের একাধিক ছাত্রবিরোধী নীতির অভিযোগ তুলে এক মাসেরও বেশি সময় ধরে লাগাতার আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছিল। তাঁদের ঐক্যবদ্ধ আন্দোলন দমাতে এর আগেও একাধিক হামলা চালিয়েছে কর্তৃপক্ষ, পড়ুয়াদের একাংশ এরকম অভিযোগ করেছে। মনে করা হচ্ছে সেই কারণেই আবারও এইরকম্ভাবে আক্রমণ করা হয়েছে পড়ুয়াদের উপরে।

জেএনইউয়ের এই ঘটনায় গুরুতর চোট পেয়েছেন ছাত্র সংসদের সভাপতি ঐশী ঘোষ। এছাড়াও পড়ুয়াদের বাঁচাতে গিয়ে ছাড় পাননি অধ্যাপকেরাও। আহত হয়েছেন সুচরিতা সেন। আহত পড়ুয়াদের নিয়ে যাওয়া হয়েছে এইমসে। এই ঘটনার পরে তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। তবে যেহেতু স্বরাষ্ট্র দফতর অমিত শাহের হাতে, তাই তার বিরুদ্ধে তোপ দাগছেন আম আদমি পার্টির সদস্যরা।

এই ঘটনার প্রতিবাদে আলিগড় মুসলিম বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়ুয়ারা মোমবাতি মিছিল করে। পাশাপাশি এই রাজ্যর যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়ুয়ারাও ঘটনার প্রতিবাদে মিছিল করেছিল গতকাল রাতেই। এছাড়াও এই ঘটনা নিয়ে ইতিমধ্যেই শুরু হয়ে গিয়েছে রাজনৈতিক বাদানুবাদ। পাশাপাশি পাটনা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্ররাও প্রতিবাদ জানিয়েছে এই ঘটনার। এছাড়াও মুম্বইয়ের পড়ুয়ারা এই ঘটনার প্রতিবাদে জড়ো হয়েছিলেন গেটওয়ে অফ ইন্ডিয়ার সামনে৷