নয়াদিল্লি: উপাচার্যের না থাকার সুযোগে তাঁর বাড়িতেই ঘেরাও আন্দোলন চালাল ছাত্ররা৷ সূত্রের খবর, দাবি নিয়ে সটান উপাচার্যের বাড়ি হাজির হয় জওহরলাল নেহরু বিশ্ববিদ্যালয়ের অনশনরত পড়ুয়ারা৷ জোর করে ঢুকে পড়ে উপাচার্য এম জগদীশ কুমারের বাড়িতে৷ সেই সময় তিনি বাড়ি ছিলেন না৷ উপাচার্যকে না পেয়ে তাঁর স্ত্রীকে কার্যত ‘ঘেরাও’ করার অভিযোগ উঠল পড়ুয়াদের বিরুদ্ধে৷

পড়ুয়াদের বিরুদ্ধে এমন গুরুতর অভিযোগ এনেছেন খোদ উপাচার্য এম জগদীশ কুমার৷ ট্যুইট করে তিনি লেখেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের কিছু পড়ুয়া জোর করে আমার বাড়ি ঢুকে পড়ে৷ সেই সময় আমি বাড়ি ছিলাম না৷ জরুরি মিটিংয়ের জন্য বাইরে যেতে হয়েছিল৷ পড়ুয়ারা আমার স্ত্রীকে বাড়ির ভিতর বন্দি করে রাখে৷ ক্ষোভের সঙ্গে তাঁর প্রশ্ন, এটা কী ধরনের প্রতিবাদ যা বাড়িতে একা থাকা মহিলাকে সন্ত্রস্ত করে দেয়? পরে অবশ্য ট্যুইট করে তিনি পড়ুয়াদের ক্ষমা করে দেওয়ার কথা জানান৷ লেখেন, তিনি বা তাঁর স্ত্রী কেউই পড়ুয়াদের বিরুদ্ধে অভিযোগ করবেন না৷

যাদবপুর হোক কিংবা জওহরলাল নেহরু ছাত্র আন্দোলনের সেই চেনা ছবি সর্বত্র এক৷ চলতি শিক্ষাবর্ষ থেকে অনলাইনে প্রবেশিকা পরীক্ষার দাবিতে কিছু পড়ুয়া অনশন চালিয়ে যাচ্ছে৷ সূত্রের খবর, বাম সমর্থিত পড়ুয়ারা সোমবার রাতে উপাচার্যের সঙ্গে দেখা করতে তাঁর বাড়ি যায় কিছু পড়ুয়া৷ তাদের একাংশ জানিয়েছে, উপাচার্য তাদের সঙ্গে দেখা করতে চাইছে না৷ গত সপ্তাহে তাঁর সঙ্গে দেখা করতে গেলে তিনি পড়ুয়াদের সমস্যা নিয়ে কোনও উচ্চবাচ্য করেননি৷ উলটে পড়ুয়াদের মিষ্টি খেতে দেন৷

এদিকে সোমবার রাতে পড়ুয়ারা জগদীশ কুমারের বাড়িতে ঢুকে পড়া নিয়ে চূড়ান্ত বিশৃঙ্খলা তৈরি হয়৷ পুলিশ ডাকা হয়৷ খবর পেয়ে অন্যান্য প্রফেসরের স্ত্রীরাও ছুটে আসেন৷ সকলে মিলে ‘বন্দি’ উপাচার্যের স্ত্রীকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়৷ চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, তিনি ট্রমার মধ্যে আছেন৷

এদিকে পড়ুয়ারা তাদের বিরুদ্ধে ওঠা যাবতীয় অভিযোগ অস্বীকার করেছেন৷ জানিয়েছেন, তারা উপাচার্যের সঙ্গে দেখা করতে যান ঠিকই৷ কিন্তু তাঁর বাড়ির নিরাপত্তা কর্মীরা তাদের সঙ্গে অভব্য আচরণ করে৷ শুরু হয় বচসা সেখান থেকে হাতাহাতি৷ নিরাপত্তা কর্মীদের মারে কয়েকজন পড়ুয়া জখম হয় বলে খবর৷