শ্রীনগর: শুক্রবার সকালে এক জঙ্গিকে নিকেশ করল ভারতীয় সেনা৷ জম্মু কাশ্মীরের বুদগাম জেলার ক্রালপোরা এলাকায় গুলির লড়াই শুরু হয়৷ সেখানেই এক জঙ্গিকে খতম করা সম্ভব হয়েছে৷

সূত্রের খবর দুই থেকে তিন জন জঙ্গি এখনও ওই এলাকায় লুকিয়ে রয়েছে৷ গোটা এলাকা ঘিরে রেখেছে নিরাপত্তা বাহিনী৷ তল্লাশি অভিযান চলছে৷ গোপন সূত্রে খবর পেয়ে বুদগাম এলাকায় তল্লাশি করতে শুরু করে ভারতীয় সেনা৷ আচমকাই গুলি চালায় জঙ্গিরা৷

পালটা জবাব দেয় সেনাও৷ সেনার গুলিতে নিকেশ হয় এক জঙ্গি৷ তবে আরও জঙ্গি সেখানে লুকিয়ে রয়েছে৷ এদিকে, বুধবারও ভোর থেকেই পুলওয়ামায় ফের শুরু হয় সেনা-জঙ্গি গুলির লড়াই৷ পুলওয়ামার ত্রাল এলাকার নাগবালের জঙ্গলে আধা সামরিক সেনা সিআরপিএফ এবং জম্মু-কাশ্মীর পুলিশের স্পেশাল অপরেশন টিমের সদস্যরা অভিযান চালাতে শুরু করে৷

ওই জঙ্গলেই তিন জঙ্গি লুকিয়ে রয়েছে, সূত্র মারফত এমন একটি খবর পেয়ে অভিযান শুরু করে সেনা৷ জঙ্গলের ভিতর থেকে সেনাকে লক্ষ্য করে গুলি চালায় জঙ্গিরা৷ ব্যাস, তারপরই শুরু হয়ে যায় যুদ্ধ৷ জঙ্গল লাগোয়া এলাকায় ইন্টারনেট পরিষেবা বন্ধ করে দেওয়া হয়৷ শেষ পাওয়া খবর অনুযায়ী এক জঙ্গির মৃত্যু হয়।

এদিকে, লোকসভা নির্বাচনে গান্ধিনগর থেকে জিতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হয়ে এই প্রথম জম্মু ও কাশ্মীর সফরে অমিত শাহ৷ শ্রীনগরে বৈঠক করেন৷ সাক্ষাত করেন রাজ্যপাল সত্যপাল মালিকের সঙ্গে৷ জানতে চান কাশ্মীরের পরিস্থিতি৷ এর আগে বুধবার বিমানবন্দরে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে স্বাগত জানান রাজ্যপাল৷ যদিও প্রোটোকল অনুযায়ী প্রধানমন্ত্রীকেই একমাত্র স্বাগত জানাতে পারেন রাজ্যপাল৷ তাঁর সঙ্গে এদিন ছিলেন প্রশাসনের উচ্চ পদস্থ কর্তারা৷ কাশ্মীরে পৌঁছেই উচ্চপদস্থ আধিকারিকদের সঙ্গে বৈঠকে বসেন তিনি৷

আরও পড়ুন : যোগীর রাজ্যে মুসলিমদের কবরস্থানের জন্য জমি দিলেন হিন্দু ভাইয়েরা

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের দায়িত্বপ্রাপ্ত আধিকারিকরা উপস্থিত ছিলেন সেখানে৷ স্বরাষ্ট্রসচিব রাজীব গৌবা, নর্দার্ন আর্মি কমাণ্ডার লেফটেন্যান্ট জেনারেল রণবীর সিং, ডিজিপি দিলবাগ সিং, রাজ্যের মুখ্য সচিব বি ভি আর সুব্রক্ষ্মণ্যমও উপস্থিত ছিলেন৷

উল্লেখ্য, ১২ই জুন কাশ্মীরের অনন্তনাগে জঙ্গিদের গুলি লাগে অনন্তনাগের সদ্দর পুলিশ স্টেশনের এসএইচও আরশাদ খানের বুকে৷ আশংকাজনক অবস্থায় হাসপাতালে ভরতি করা হয় তাঁকে৷ হাসপাতালেই মারা যান আরশাদ৷ চল্লিশ বছর বয়েসী আরশাদকে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল দিল্লির এইমসে৷ তবে শেষ রক্ষা হয়নি৷ এসএইচওর প্রাণহীন দেহ ফিরেছিল তাঁর বাড়িতে৷

সেই আরশাদ খানের পরিবারের সঙ্গে বৃহস্পতিবার দেখা করেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী৷ আরশাদ খানের স্ত্রী, মা ও দুই সন্তান রয়েছেন বাড়িতে৷ তাদের সঙ্গে দেখা করে সবরকম সাহায্যের আশ্বাস দেন তিনি৷ ওই একই হামলায় শহিদ হন আরও পাঁচ জন সিআরপিএফ জওয়ান৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.