অল্প সময়ের মধ্যে ভারতের বাজারে নতুন নেটওয়ার্ক পরিষেবা নিয়ে আসার পর থেকেই সাধারণ মানুষের কাছে অত্যন্ত জনপ্রিয় এবং পছন্দের হয়ে উঠেছিল রিলায়েন্স জিও। এমনকি মানুষের কথা ভেবে তাদের তরফে বাজারে নিয়ে আসা হয়েছিল একাধিক নতুন প্ল্যান। এমনকি করোনা পরবর্তী সময়ে সাধারণ মানুষের কথা ভেবে জিওর তরফে নেওয়া হয়েছিল বেশ কিছু পদক্ষেপ। তবে এবারে জানা গিয়েছে তাদের তরফে দ্রুত কম দামী ল্যাপটপ বাজারে নিয়ে আসার পরিকল্পনা করা হচ্ছে।

 

জানা গিয়েছে কম দামী ল্যাপটপ জিও বুক তৈরি করার বিষয়ে গুরুত্ব দিয়েছে রিলায়েন্স জিও। জানা গিয়েছে এই ল্যাপটপ তৈরি করা হবে মূলত android পরিষেবাকে ভিত্তি করে। এছাড়াও মনে করা হচ্ছে এই ল্যাপটপে থাকবে jio অপারেটিং সিস্টেম। ফলে বাইরে থেকে নতুন করে কোন অপারেটিং সিস্টেম নিয়ে আসতে হবে না। এছাড়াও এই নতুন জিওবুকে থাকবে 4g lte এর সুবিধা। ইতিমধ্যে জিওর তরফে এক ঝাঁক পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। আর তার ফলে সুবিধা পেয়েছে সাধারণ মানুষজন। সেই কারণেই মনে করা হচ্ছে নতুন করে এই ল্যাপটপ বাজারে নিয়ে আসা হলে সুবিধা পাবে সকলে। বিশেষ করে পড়ুয়াদের ক্ষেত্রে যথেষ্ট সুবিধা দেবে এই ল্যাপটপ।

এই জিও বুক তৈরি করার জন্য জিওর সঙ্গে যুক্ত হয়েছে চিনা সংস্থা bluebank communication। ইতিমধ্যে এই সংস্থার তরফে জিও ফোন তৈরি করা হয়েছে বলেও জানা গিয়েছে। গত বছরের সেপ্টেম্বর মাস থেকেই এই জিও বুক তৈরি করার কাজ শুরু হয়েছে বলে জানা গিয়েছে। অনুমান করা হচ্ছে ২০২১ সালেই গ্রাহকদের জন্য এই মডেল নিয়ে আসা হবে।

তবে ইতিমধ্যে বেশ কিছু পরীক্ষা করা হচ্ছে এই প্রোডাক্টের। তার পরেই ভারতের বাজারে নিয়ে আসা হবে এই প্রোডাক্ট। ইতিমধ্যে সামনে এসেছে এই জিও বুকের একটি ছবি। আর তা দেখেই মনে করা হচ্ছে যথেষ্ট আকর্ষণীয় হতে চলেছে এই ল্যাপটপ। জানা গিয়েছে এই ল্যাপটপে থাকবে qualcomm snapdragon 665 soc এর সুবিধা। এছাড়াও থাকবে আরও এক ঝাঁক ফিচার। ফলে মনে করা হচ্ছে অল্প বাজেটের ল্যাপটপের ক্ষেত্রে গ্রাহকদের কাছে ক্রমেই পছন্দের হয়ে উঠবে এই জিও বুক।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।