নয়াদিল্লি: জিও-র গ্রাহকদের জন্য দুঃসংবাদ। এবার থেকে জিও নম্বর থেকে ফোন করতে গেলে চার্জ কাটা হবে। বুধবার এমনই জানিয়েছেন সংস্থাটির কর্মকর্তারা। সংবাদসংস্থা পিটিআইয়ের সূত্রের খবর প্রতি মিনিটে ৬ পয়সা করে চার্জ কাটতে চলেছে জিও। জিও নম্বর থেকে অন্য মোবাইল পরিষেবা প্রদানকারী নম্বরে ফোন করলেই এই চার্জ দিতে হবে গ্রাহকদের।

তবে এই চার্জ শুধুমাত্র ভয়েস কলের ক্ষেত্রেই লাগু হবে। জিও জানিয়েছে হোয়াটসঅ্যাপ কল বা অন্য জিও নম্বরে ফোন করলে এই টাকা কাটা হবে না। জিও সূত্রের খবর ভয়েস কলের জন্য যে টাকা কাটা হবে সেই টাকার সমমূল্যের ফ্রি ডেটা গ্রাহকদের ফিরিয়ে দেওয়া হবে।

বর্তমানে জিও শুধু ডেটার জন্য চার্জ কাটে। দেশের মধ্যে যে কোনও জায়গায় ও যে কোনও নম্বরে ফ্রি ভয়েস কল করার সুবিধা দিচ্ছে জিও। তবে সে সুখের দিন শেষ। জানানো হয়েছে, বুধবার থেকে যেসব রিচার্জ জিও নম্বরে হবে, তার ওপরেই লাগু হয়ে যাবে নয়া নিয়ম।

এক বিবৃতিতে শিল্পপতি মুকেশ অম্বানির জিও সংস্থা ল্যাণ্ড ফোনে ফোন করলেও কোনও টাকা কাটা হবে না। ইনকামিং কলও ফ্রি থাকবে। উল্লেখ্য ২০১৭ সালে টেলিকম রেগুলেটরি অথরিটি অফ ইণ্ডিয়া ইন্টারকানেক্ট ইউসেজ চার্জ বা আইইউসি কমিয়ে এনেছিল। কল প্রতি ১৪ পয়সা থেকে কমিয়ে তা ধার্য করা হয়েছিল ৬ পয়সা। তবে এই নিয়ম কার্যকর থাকবে ২০২০ সালের জানুয়ারি পর্যন্ত।

সেই নিয়মের কথা মাথায় রেখেই জিও-র এই নয়া সিদ্ধান্ত বলে খবর। তবে টেলিকম রেগুলেটরি অথরিটি অফ ইণ্ডিয়া বা ট্রাই তাদের সিদ্ধান্তের সময়সীমা বৃদ্ধি করবে কিনা, তা সময় বলবে।

জিও নেটওয়ার্কে ভয়েস কল ফ্রি থাকার কারণে মোটা অঙ্কের খেসারত গুণতে হয়েছে জিওকে। ভারতী এয়ারটেল ও ভোডাফোনকে জিও ক্ষতিপূরণ দিয়েছে ১৩,৫০০ কোটি টাকা। এই ক্ষতিপূরণ পোষানোর জন্য ট্রাইয়ের নির্দেশিকা মানতে চলেছে জিও। এবার থেকে প্রতি কলে ৬ পয়সা করে চার্জ কাটা হবে গ্রাহকদের বলে জানানো হয়েছে। এই প্রথমবার গ্রাহকদের থেকে টাকা কাটতে চলেছে জিও।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.