জামশেদপুর: আজব ঘটনা। লকডাউনের জেরে বিয়ে স্থগিত করে দিয়েছিলেন দুই পরিবারের লোকজন। এই ঘটনায় রীতিমত ভেঙে পড়েন তিরিশ বছরের পাত্র। নিজের ঘরে গলায় দড়ি দিয়ে আত্মহত্যা করলেন তিনি। ঘটনাটি ঘটেছে ঝাড়খণ্ডের জামশেদপুরের বিশ্বকর্মা নগরে।

অনির্দিষ্টকালের জন্য বিয়ে পিছিয়ে যেতেই রবিবার আত্মহত্যা করেন তিনি। পুলিশ সূত্রে খবর বিয়ের স্থগিত হওয়ার কথা শুনেই মানসিক অবসাদে ভুগতে থাকেন তিনি। তারপরেই আত্মহত্যা করেন।

মৃত ব্যক্তির নাম সঞ্জিত গুপ্তা। খবর পেয়েই ঘটনাস্থলে পৌঁছয় ওলিধি থানার পুলিশ। একটি মামলা দায়ের করে তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ। দেহ পাঠানো হয়েছে ময়নাতদন্তের জন্য। পুলিশ জানিয়েছে শনিবার রাতে সবার সঙ্গে বসেই খাবার খান সঞ্জিত। ভোর চারটের সময় তাঁর বাবা রাজেন্দ্র প্রসাদ গুপ্তা প্রাতঃকৃত্য সারতে উঠে সঞ্জিতের মৃতদেহ দেখতে পান।

বিহারের ওরাঙ্গাবাদের একটি মেয়ের সঙ্গে বিয়ে ঠিক হয়েছিল সঞ্জিতের। ২৫শে এপ্রিল বিয়ে হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু লকডাউনের জন্য তা সম্ভব হয়নি। এতেই ভেঙে পড়ে ওই যুবক।

উল্লেখ্য এর আগেও একাধিকবার আত্মহত্যার চেষ্টা করে সঞ্জিত। তবে সফল হয়নি। মানসিক অবসাদে ভুগতে শুরু করে সে। বন্ধু বান্ধব ও বাড়ির লোকজনের সাথে কথা বলা বন্ধ করে দিয়েছিল ওই যুবক।

এর আগে ২০০০ সালে সঞ্জিতের বড় দাদা জলে ডুবে মারা যান। ২০১২ সালে নিখোঁজ হয়ে যান মেজ দাদা। পরপর তিন ছেলেকে হারিয়ে শোকে মুহ্যমান পরিবার।

এদিকে জানা গিয়েছে, আগামী কয়েক মাস করোনা কমার লক্ষণতো নেই বরং তা আরও বহু গুন বেড়ে যাবে৷ জুলাইতে ভারতে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৫ লাখ পেরিয়ে যেতে পারে৷ এমনই মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। দেশে লকডাউন ও করোনা নিয়ন্ত্রণের ওপর ৪৩ পাতার একটি রিপোর্ট তৈরি হয়েছে৷ তাতে বলা হয়েছে, ভারতে যা করোনা পরিস্থিতি তাতে জুলাইয়ের শুরুতে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৫ লাখ পেরিয়ে যাবে৷

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ