রাঁচি : ঝাড়খন্ডের মুখ্যমন্ত্রী হেমন্ত সোরেন কোয়ারেন্টাইনে গেলেন। নিজের বাসভবনেই হোম কোয়ারেন্টাইনে রয়েছেন তিনি। যে মন্ত্রীদের সাথে তিনি সাক্ষাত করেছিলেন, তাঁদের একজনের করোনা হওয়ায় হোম কোয়ারেন্টাইনে গেলেন হেমন্ত সোরেন।

বুধবার প্রকাশিত এক বিবৃতিতে ঝাড়খন্ড সরকার জানায়, নিজের উদ্যোগেই হোম কোয়ারেন্টাইনে রয়েছেন হেমন্ত সোরেন। যাতে তাঁর থেকে কারোর সংক্রমণের ঝুঁকি না থাকে। ইতিমধ্যেই মুখ্যমন্ত্রীর বাসভবনে সাধারণের জন্য প্রবেশ বন্ধ করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, মঙ্গলবার রাজ্যের মন্ত্রী মিথিলেশ ঠাকুরের সঙ্গে সাক্ষাত করেন মুখ্যমন্ত্রী।তার পরেই মিথিলেশ ঠাকুরের করোনা পজেটিভ ধরা পড়ে। তবে শুধু মুখ্যমন্ত্রী হেমন্ত সোরেনই নন, হোম কোয়ারেন্টাইনে রয়েছেন মুখ্যমন্ত্রীর দফতরের সব কর্মীই। মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশেই তাঁরা কোয়ারেন্টাইনে গিয়েছেন বলে খবর। বুধবার মুখ্যমন্ত্রীর করোনা পরীক্ষা হয়। তবে তার ফল এখনও জানা য়ায়নি। মিথিলেশ ঠাকুরের দ্রুত আরোগ্য কামনা করেছেন মুখ্যমন্ত্রী হেমন্ত সোরেন।

ঝাড়খন্ড মুক্তি মোর্চার এক বিধায়ক মথুরা মাহাতো করোনা আক্রান্ত। তাঁরও দ্রুত আরোগ্য কামনা করেছেন মুখ্যমন্ত্রী। মঙ্গলবার এক বিবৃতি প্রকাশ করে এই বক্তব্য রাখেন তিনি। ঠাকুর ও মাহাতো-এই দুই হেভিওয়েট করোনা আক্রান্তকে রাজ্য সরকারের রাজেন্দ্র ইনস্টিটিউট অফ মেডিক্যাল সায়েন্সেসের কোভিড ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়েছে। কাদের কাদের সঙ্গে তাঁরা দেখা করেছিলেন, তার খোঁজ চলছে।

এখনও পর্যন্ত ঝাড়খন্ডে ৩০০০ করোনা আক্রান্তের সন্ধান মিলেছে। এরমধ্যে অ্যাক্টিভ কেসের সংখ্যা ৮৯২। রাজ্যের মোট করোনায় মৃত ২২ জন।

এদিকে, বেলাগাম সংক্রমণ গোটা দেশে। গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে দেশে ২২ হাজার ৭৫২ জন নোভেল করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা আক্রান্ত হয়ে দেশে মৃত্যু হয়েছে আরও ৪৮২ জনের। গোটা দেশে বুধবার সকাল পর্যন্ত করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে ৭ লক্ষ ৪২ হাজার ৪১৭। দেশে করোনায় মৃত্যু বেড়ে ২০ হাজার ৬৪২। লাফিয়ে বাড়ছে সংক্রমণ।

গত ২৪ ঘণ্টায় ২৩ হাজারের কাছাকাছি মানুষ নতুন করে করোনায় আক্রান্ত হলেন। একদিকে যেমন আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে অন্যদিকে সুস্থও হচ্ছেন অনেকে।

বুধবার সকাল পর্যন্ত স্বাস্থ্যমন্ত্রকের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী গোটা দেশে এখনও পর্যন্ত করোনামুক্ত হয়েছেন ৪ লক্ষ ৫৬ হাজার ৮৩১ জন। এই মুহূর্তে দেশে করোনা অ্যাক্টিভ কেস রয়েছে ২ লক্ষ ৬৪ হাজার ৯৪৪টি। মহারাষ্ট্রেই দেশের মধ্যে সর্বাধিক সংক্রমণ। বুধবার সকাল পর্যন্ত স্বাস্থ্যমন্ত্রকের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী মহারাষ্ট্রে নোভেল করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে ২ লক্ষ ১৭ হাজার ১২১।

সেরাজ্যে করোনায় মৃত্যু বেড়ে ৯ হাজার ২৫০। মহারাষ্ট্রের পরেই সংক্রমণের নিরিখে দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে তামিলনাড়ু। দক্ষিণের এই রাজ্যেও মাত্রাছাড়া সংক্রমণ। এখন পর্যন্ত তামিলনাড়ুতে ১ লক্ষ ১৮ হাজার ৫৯৪ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। মৃতের সংখ্যা বেড়ে ১ হাজার ৬৩৬।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ