নয়াদিল্লি: ঝাড়খণ্ডে পাঁচ দফায় বিধানসভা নির্বাচনের কথা ঘোষণা করল জাতীয় নির্বাচন কমিশন। মোট পাঁচ দফার এই ভোট পর্ব শুরু হবে আগামী ৩০শে নভেম্বর থেকে। দ্বিতীয় দফায় ভোটগ্রহণ হবে ৭ই ডিসেম্বর। তৃতীয় দফা ১২ই ডিসেম্বর। এবং চতুর্থ নির্বাচন ও পঞ্চম নির্বাচন হবে যথাক্রমে ১৬ ও ২০ ডিসেম্বর। ভোটের ফলপ্রকাশের দিন স্থির করা হয়েছে আগামী ২৩শে ডিসেম্বর।

শুক্রবার জাতীয় নির্বাচন কমিশন সুনীল অরোরা সাংবাদিক বৈঠকে এই কথা জানান। ভোটের দিন ঘোষণার সঙ্গেই আজ শুক্রবার থেকেই আদর্শ বিধি চালু হওয়ার কথা ঘোষণা করেছে কমিশন। এছাড়াও ভোট যাতে শান্তিপূর্ণ ভাবে মেটে সে বিষয়েও বেশ কিছু পদক্ষেপ করা হয়েছে বলে জানিয়েছে জাতীয় নির্বাচন কমিশন।

এপ্রিল-মে মাসে লোকসভা নির্বাচনে বিপুল ভোটে মোদী সরকার ক্ষমতায় ফেরার পর ঝাড়খণ্ডই তৃতীয় রাজ্য যেখানে বিধানসভা ভোট হতে চলেছে। মহারাষ্ট্র, হরিয়ানার পর ঝাড়খণ্ডই বিজেপি শাসিত রাজ্য যেখানে বিধানসভা নির্বাচনের দিন ঘোষণা হল। গত ২১শে অক্টোবর মহারাষ্ট্র এবং হরিয়ানার ফল ঘোষণা হয়। মহারাষ্ট্র,হরিয়ানার নির্বাচনের জন্য ঝাড়খণ্ড নির্বাচনের দিন ঘোষণা স্থগিত রেখেছিল জাতীয় নির্বাচন কমিশন।

আর সেইসব মিটতেই এবারে ঝাড়খণ্ড বিধানসভা নির্বাচনের দিনক্ষণ ঘোষণা করল কমিশন। হরিয়ানায় জেজেপির হাত ধরে ক্ষমতায় ফিরলেও মহারাষ্ট্রে এখনও সরকার গড়তে পারেনি গেরুয়া শিবির। এরমাঝে ঝাড়খণ্ডের এই ভোট গেরুয়া শিবিরের ক্ষমতা মাপার সুযোগ বলে মনে করছে রাজনৈতিক মহল।

বর্তমানে ঝাড়খণ্ডের ছাত্র সংগঠন অল ঝাড়খণ্ড স্টুডেন্টস ইউনিয়নের সঙ্গে জোট বেঁধে ক্ষমতায় আছে পদ্ম শিবির। ২০১৪ সালে লোকসভা নির্বাচনে ৮১ আসনের মধ্যে বিজেপি ৩১টি আসন পায়। ঝাড়খণ্ড স্টুডেন্টস ইউনিয়নের(এজেএসইউ) পায় ১৭টি আসন। এজেএসইউ-এর সঙ্গে গাঁটছড়া বেঁধে সরকার গড়ে বিজেপি। ঝাড়খণ্ডে বিধানসভার মেয়াদ শেষ হচ্ছে আগামী বছরের ৫ই জানুয়ারি। তাই এর আগেই নতুন সরকার গড়তে নির্বাচনের ঘোষণা করল কমিশন। মহারাষ্ট্র এবং হরিয়ানা নির্বাচনে দেখা গিয়েছে ভোট কমেছে গেরুয়া শিবিরের। তাই এই নির্বাচন ঝাড়খণ্ডের মুখ্যমন্ত্রী রঘুবীর দাসের কাছে এক বিরাট চ্যালেঞ্জ বলেই মনে করছে রাজনৈতিক মহল।

পচামড়াজাত পণ্যের ফ্যাশনের দুনিয়ায় উজ্জ্বল তাঁর নাম, মুখোমুখি দশভূজা তাসলিমা মিজি।