লখনউ: বাস দুর্ঘটনায় কাটা পড়েছে একটি পা৷ আর সেই কাটা পা’কেই ওই রোগীর বালিশ হিসাবে ব্যবহার করল ডাক্তারা৷ এই ঘটনা উত্তরপ্রদেশের সরকারি হাসপাতালের দৈন্যদশাকে আরও প্রকট দিল৷

ঘটনাটি ঝাঁসির মহারানি লক্ষ্মীবাই মেডিক্যাল কলেজের৷ জানা গিয়েছে, বাস দুর্ঘটনায় গুরুতর জখম এক ব্যক্তিকে ওই হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়৷ চিকিৎসার পর ওই ব্যক্তির একটি পা হাঁটু থেকে বাদ দেওয়া হয়৷ এরপর তাকে স্ট্রেচারে শোয়ানো হয়৷ তখন মাথার নিচে বালিশের বদলে ওই ব্যক্তির বাদ যাওয়া পা রেখে দেওয়া হয়৷

আরও পড়ুন: ছ’জন মিলে গণধর্ষণ মহিলাকে, ইন্টারনেটে ভাইরাল ভিডিও

স্থানীয় একটি টিভি চ্যানেলে সেই ছবি দেখে আঁতকে ওঠেন সকলে৷ চিকিৎসকদের এই আচরণ অবাক করেছে যোগীর প্রশাসনের কর্তা ব্যক্তিদের৷ প্রশ্ন উঠছে কীভাবে এমনটা করতে পারলেন ডাক্তাররা? নিন্দুকদের মতে, এই ঘটনা উত্তরপ্রদেশের সরকারি হাসপাতালের বেহাল পরিকাঠামোর দুর্দশার ছবিকে সামনে এনে দিল৷

জানা গিয়েছে, আহত ওই ব্যক্তি একটি বেসরকারি স্কুল বাসের সাফাই কর্মী৷ শনিবার ঝাঁসির মৌরানিপুর এলাকায় ট্র্যাকটরের সঙ্গে সংঘর্ষ এড়াতে গিয়ে দুর্ঘটনার কবলে পড়ে৷ তখনই গুরুতর জখম হন ওই কর্মী৷ সঙ্গে সঙ্গে তাকে ঝাঁসির মেডিক্যাল কলেজে নিয়ে যাওয়া হয়৷ তার শরীরে সংক্রমণ যাতে না ছড়ায় তার জন্য হাঁটু থেকে পা বাদ দিয়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেন চিকিৎসকরা৷ এরপর স্ট্রেচারে করে নিয়ে যাওয়ার সময় ওই কাটা পা’কে বালিশ হিসাবে ব্যবহার করা হয় বলে অভিযোগ৷

আরও পড়ুন: ফেসবুকে যুবতীর নাম ভাঁড়িয়ে অশ্লীল ছবি পোস্ট

যদিও হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ এই অভিযোগ অস্বীকার করেছে৷ তবে ঘটনার পূর্ণাঙ্গ তদন্তের আশ্বাস দিয়েছেন মেডিক্যাল কলেজের অধ্যক্ষ সাধনা কৌশিক৷

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ