প্রতীতি ঘোষ, ব্যারাকপুর: ফেরি ঘাটের লোহার জেটি ভেঙে পড়ায় সম্পূর্ণ ভাবে বন্ধ হয়ে গেল খড়দহ রিষড়া ফেরি চলাচল। ফলে উৎসবের মরশুমে বড় সমস্যার পড়ছেন এই ফেরি ঘাট ধরে চলাচল করা রোজকার নিত্যযাত্রীরা। খড়দহ ও তার পার্শ্ববর্তী অঞ্চলের প্রায় কয়েকশো মানুষ রোজ জেটি ব্যবহার করেন। কিন্তু সোমবার মধ্য রাতে জেটিটি র একাংশ ভেঙ্গে গঙ্গায় পড়ে যায়।

মঙ্গলবার এই ফেরি ঘাটের কর্মী ও নিত্য যাত্রীরা ঘাট পার হতে এসে দেখেন যে ভেঙ্গে পড়েছে জেটির একাংশ। তখনই সঙ্গে সঙ্গে ফেরি ঘাটের কর্মীরা বন্ধ করে দেন যাত্রী পরিষেবা। খবর দেওয়া হয় স্থানীয় প্রশাসন ও রিষড়া পৌরসভাকে। খড়দহ রিষড়া ফেরি ঘাটটি রক্ষনাবেক্ষণের দায়িত্বে আছে রিষড়া পৌরসভা। এই ফেরি ঘাটের কর্মীরা জানান, সকালে এসে তাঁরা জেটি ভাঙা অবস্থায় দেখেই রিষড়া পৌরসভাকে খবর দিলেও বেলা পর্যন্ত ওপার থেকে কেউ বিষয়টি দেখতে আসেননি।

তাঁদের অভিযোগ,”এই ফেরি ঘাটটির দেখা শোনা করার দায়িত্ব রিষড়া পৌরসভার হলেও তারা সেই ভাবে কোন গুরুত্ব দেন না। দীর্ঘদিন ধরে এই জেটির কোনও মেরামতি হয়নি। এমনকী, সোমবার সকালেও জেটিটির অবস্থা খারাপ ওপারে খবর দিই আমরা। তখন কিছু লোক রিষড়া থেকে এপারে এসে জেটিটি একটু দেখে সামান্য একটু দড়ি দিয়ে বেঁধে রেখে চলে যান। কোনও স্থায়ী ব্যবস্থা না হওয়ার জন্য এই জেটিটি ভেঙে পড়েছে। তবে ভাগ্য ভালো তাই জেটি ভেঙে যাওয়ার সময়ে কোনও যাত্রী সেখানে উপস্থিত ছিলেন না। নাহলে অনেক বড় দুর্ঘটনা ঘটতে পারতো।

ফেরি ঘাটের কর্মীরা আরও বলেন, এই পারের প্রশাসন যথেষ্টই ভালো কাজ করছে। তারা জেটি ভেঙে যাওয়ার খবর পেয়ে সঙ্গে সঙ্গে ঘটনাস্থলে ছুটে আসেন। পুলিশ প্রশাসনও যথেষ্টই তৎপর রয়েছে এখানে।” তবে উৎসবের মরশুমে এই জেটি ভেঙে যাওয়ার ফলে ব্যাপক সমস্যা সৃষ্টি হয়েছে। বহু মানুষ এপার-ওপার হতেরোজ খড়দহের এই জেটির উপরেই নির্ভর করেন। কিন্তু এই জেটি পাকাপাকি ভাবে পুজোর আগেই ঠিক করা হবে কি না তা নিয়ে যথেষ্টই সংশয়ে রয়েছেন এখানকার স্থানীয় বাসিন্দা-সহ এই জেটির কর্মীরাও।