নিউজ ডেস্ক : ২২ হাজার কর্মীর ভবিষ্যত অনিশ্চিত। প্রায় ৮,৫০০ কোটি টাকার ঋণে ডুবে জেট এয়ারওয়েজ। অর্নিদিষ্টকাল পর্যন্ত বিমান পরিষেবা বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। এমন সময় ব্যক্তিগত কারণ দেখিয়ে ইস্তফা দিলেন জেট এয়ারওয়েজ সংস্থার ডেপুটি সিইও এবং মুখ্য ফিনানশিয়াল অফিসার অমিত আগরওয়াল।

গতকালই তাঁর ইস্তফাপত্র সংস্থা গ্রহণ করেছে বলে জানা গিয়েছে। সংস্থার তরফে জানানো হয়েছে, “ডেপুটি সিইও ও সিএফও অমিত আগরওয়াল ব্যক্তিগত কারণ দেখিয়ে ইস্তফা দিয়েছেন।”

অন্যদিকে, বন্ধকী ঋণদাতা এইচডিএফসি ব্যাঙ্কও জেট এয়ারওয়েজের অফিস বিক্রি করার জন্য নোটিস জারি করেছে। ব্যাঙ্কের তরফে জানানো হয়, প্রায় ৪১৪ কোটি টাকার ঋণ শুধতে ব্যর্থ হয়েছে জেট এয়ারওয়েজ। ওই মূল্যের সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করতে কড়া পদক্ষেপ করেছে এইচডিএফসি ব্যাঙ্ক।

কর্মীদের বেতন এবং পরিষেবা চালু করার আর্জি নিয়ে সুপ্রিম কোর্টে দ্বারস্থ হয়েছে জেট পাইলটদের সংগঠন ‘ন্যাশনাল অ্যাভিয়েশন গিল্ড’। তাদের অভিযোগ, এই মুহূর্তে সংস্থার রাশ যাদের হাতে, সেই ঋণদাতা স্টেট ব্যাঙ্ক গোষ্ঠীও প্রতিশ্রুতি মতো ১৫০০ কোটি টাকার অন্তর্বর্তীকালীন পুঁজিতে সাহায্য করছে না। অবশ্য, স্টেট ব্যাঙ্ক গোষ্ঠীর দাবি, লগ্নিকারীর সন্ধান মিললেই অন্তর্বর্তীকালীন টাকা দেওয়া হবে। তবে এখনও পর্যন্ত নিলামে আগ্রহ দেখায়নি এতিহাদ ছাড়া কোন সংস্থা।