পাটনা ও সীতামাঢ়ি: প্রকাশ্যে এলোপাথাড়ি গুলি চালিয়ে জেডিইউ প্রার্থী শ্রীনারায়ণ সিংকে খুনের ঘটনায় ক্রমশ গরম হচ্ছে বিহার। গুলিতে জখম এক সাধারণ গ্রামবাসী চিকিৎসা চলাকালীন সীতামাঢ়ি হাসপাতালে মারা গেলেন। অন্যদিকে শিবহর জেলায় হামলার ঠিক পরেই জনতা ধরে ফেলে এক সুপারি কিলারকে।

গণপিটুনিতে তারও মৃত্যু হয়েছে। এক হামলাকারী পলাতক। তার খোঁজে দুটি জেলাতেই তল্লাশি চালাচ্ছে পুলিশ। আরও এক হামলাকারীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। বাজেয়াপ্ত করা হয়েছে পিস্তল। প্রার্থী খুনের ঘটনায় উত্তপ্ত পাটনার রাজনৈতিক মহল।

জেডিইউ শীর্ষ নেতৃত্বের অভিযোগ, এই হামলায় জড়িত বিরোধী আরজেডি বিহারে ফের ‘জঙ্গলরাজ’ কায়েম করতে চাইছে। জেডিইউ নেতাদের অভিযোগের ঝড়ে সোশ্যাল মিডিয়া সরগরম। এমনকি এনডিএ ও মহাজোটের বাইরে থাকা বিভিন্ন দলের নেতৃত্ব রাষ্ট্রপতি শাসনের দাবি তুলতে শুরু করেছেন।

শনিবার সন্ধের পর শিবহর জেলার হতসর গ্রামে প্রচার চালানোর সময় হামলাকারীরা জেডিইউ প্রার্থী শ্রীনারায়ণ সিং কে ঘিরে নেয়। পরপর গুলি চালায় তারা। ভিড়ের মাঝে এই হামলার পরেই জনতা তাড়া করে দুষ্কৃতিদের। দুই দুষ্কৃতি ধরা পড়ে যায়। শুরু হয় গণপ্রহার। পুলিশ এসে কোনরকমে পরিস্থিতির সামাল দেয়।

ততক্ষণে এক হামলাকারীর মৃত্যু হয়েছে। গুলিতে জখম দুই গ্রামবাসী ও জেডিইউ প্রার্থী কে সীতামাঢ়ি জেলার হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। পথেই মৃত্যু হয় প্রার্থীর। জখম গ্রামবাসীর মৃত্যু হয় হাসপাতালে। আরও এক জনকে চিকিৎসার পর ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।

যেভাবে ঘিরে গুলি করা হয়েছে তাতে বিহারের রাজনৈতিক চরিত্রে গ্যাং হানার স্মৃতি উসকে দেওয়া গ্যাংস অফ ওয়াসিপুর ছবির কাহিনি মনে হতে পারে। শিবহর জেলায় জারি হয়েছে সতর্কতা। সীতামাঢ়ি জেলাতেও পুলিশ সতর্ক। বিভিন্ন এলাকায় চলছে টহল। মৃত প্রার্থী গ্রাম পঞ্চায়েত প্রধান ছিলেন।

এবার বিধানসভায় জেডিইউ তাঁকে টিকিট দেয়। জানা গিয়েছে মৃত জেডিইউ প্রার্থীর বিরুদ্ধে কয়েকটি মামলা চলছে। এই খুনের পিছনে রাজনৈতিক কারণ নাকি প্রতিহিংসা তারই সূত্র খুঁজছে পুলিশ।

বিহারে নির্বাচনের দিন ঘোষণার পর থেকে তিনটি খুন হয়েছে। প্রথমে পাটনায় বিজেপি নেতাকে গুলি করে খুন করা হয়।

এরপর পূর্ণিয়া জেলায় নির্দল প্রার্থী হিসেবে ভোট লড়তে চলা এক দলিত নেতাকে গুলি করে মারা হয়। তৃতীয় খুন শিবহর জেলায় জেডিইউ প্রার্থী।

স্বামীর সঙ্গে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে বস্ত্র ব্যবসাকে অন্যমাত্রা দিয়েছেন।'প্রশ্ন অনেকে'-এ মুখোমুখি দশভূজা স্বর্ণালী কাঞ্জিলাল I