রামপুর: প্রচারে মাঠ ভরতি লোক৷ নেত্রীর চোখে জল৷ গলা বুজে আসছে৷ কাঁপা কাঁপা গলায় চোখ মুছতে মুছতে নিজের কেন্দ্র রামপুর ছেড়ে যাওয়ার গল্প বলছেন জয়াপ্রদা৷

উত্তরপ্রদেশের রামপুরের একটি জনসভায় বক্তৃতা দিতে এসে বুধবার কান্নায় ভেঙে পড়ের বিজেপি প্রার্থী জয়াপ্রদা৷ জানালেন কেন তিনি গতবার ওই কেন্দ্রে প্রার্থী হতে পারেননি৷ জয়াপ্রদার নিশানায় এককালের সতীর্থ সমাজবাদী পার্টির নেতা আজম থান৷

আরও পড়ুন: কংগ্রেস গড়ে আজ প্রচারে বিজেপি’র প্রার্থী স্মৃতি

এদিন প্রচারে বিজেপি প্রার্থী জয়াপ্রদা বলেন, ‘‘আমাকে রামপুর ছাড়তে বাধ্য করা হয়৷ কারণ আমার উপর অ্যাসিড হামলা করার ষড়যন্ত্র হয়েছিল৷ তাই রামপুর ছেড় চলে গিয়েছিলাম৷’’ নাম মুখে আনলেও জয়াপ্রদার তির যে আজম থানের দিনেই তা স্পষ্ট৷ নেত্রীর চোখে জল দেখে তখন বিজেপি কর্মী, সমর্থকরাও আবেগ তাড়িত৷ স্লোগান উঠল, আপনি লড়ুন, সঙ্গে আছি৷

আরও পড়ুন: অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে পেলে

২০০৪ ও ২০০৯ সালের লোকসভা ভোটে সমাজবাদী পার্টির প্রার্থী হয়ে উত্তরপ্রদেশের রামপুর লোকসভা কেন্দ্র থেকেই ভোটে দাঁড়িয়েছিলেন জয়াপ্রদা। দু’বারই জেতেন তিনি। ২০১০-এ সালে সমাজবাদী পার্টি থেকে বহিষ্কার করা হয় তাঁকে। ২০১৪ সালের লোকসভায় রাজস্থানের বিজনোর কেন্দ্র থেকে রাষ্ট্রীয় লোক দলের হয়ে প্রার্থী হলেও পরাজয় হয় তাঁর৷ । এবারে ফের নিজের পুরনো জায়গায় প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন জয়াপ্রদা৷ তবে রং পালটেছে পতাকার৷

টিডিপি, সপা আরএলডি অতীত৷ প্রচারে বিজেপিতে যোগদানের কারণ হিসাবে জয়াপ্রদা বলেন, ‘‘বাঁচার ও কাজের অধিকার দিচ্ছে বিজেপি৷ তাই এমন দলে যোগ দিতে পেরে আমি গর্বিত৷’’