এরনাকুলামঃ বাইকের রং সবুজ। তাই বাতিল করে দেওয়া হল গাড়ির রেজিস্ট্রেশন! শুনতে অবাক লাগলেও এমনটাই ঘটেছে কেরলের এরনাকুলামে। জলপাই রঙের বাইক কিনে স্থানীয় আরটিও অফিসে বাইকের রেজিস্ট্রেশন করাতে যান জনৈক ক্রেতা। কিন্তু, জলপাই সবুজ রঙের বাইক কেন? প্রশ্ন তুলে বাইকের রেজিস্ট্রেশন দিতে অস্বীকার করেন কেরলের পরিবহণ দফতরের এক আধিকারিক৷

কেরলের এরনাকুলামের স্থানীয় আরটিও অফিসে নতুন বাইকের রেজিস্ট্রেশন করাতে গিয়েছিলেন এক ব্যক্তি৷ বাইকের রঙ দেখেই বেঁকে বসেন আধিকারিক। তিনি জানান, মোটরযান আইন অনুযায়ী, দেশের সাধারণ মানুষ জলপাই রঙের বাইক চালাতে পারেন না। কারণ সেই অনুমোদন কেবলমাত্র সেনাবাহিনীরই রয়েছে। ১৬ জুলাই ওই এলাকার Jawa-র শো রুমে চিঠি লেখেন আধিকারিক। জানান, ‘অলিভ গ্রিন রঙের গাড়ি দেশের মোটরযান আইনের পরিপন্থী।’ তাঁর যুক্তি অনুযায়ী, ভারতে কেবলমাত্র সেনাবাহিনীই জলপাই সবুজ গাড়ি বা বাইক ব্যবহার করতে পারে। ফলে সাধের সবুজ রঙের Jawa 42 কিনে বিপাকে পড়েন ওই ব্যক্তি।

কিন্তু বাইকটির রেজিস্ট্রেশন বাতিলের আসল কারণ শুনলে অবাক হবেন আপনিও। যার নেপথ্যে রয়েছে অন্য এক কাহিনী। আধিকারিকের কাছে অনুমোদন না-পেয়ে ক্লাসিক লেজেন্ডস সংস্থার সিইও আশিস সিং জোশীর সঙ্গে যোগাযোগ করেন বাইক মালিক। নিজের সমস্যার কথা বিশদে তাঁকে জানান। সমস্ত ঘটনা শুনে আশিস সিং বাইক মালিককে জানান আসল রহস্য। জানা যায়, এর আগে ওই সংস্থার কাছে বাইক কিনতে গিয়েছিলেন ওই আধিকারিক। বাইক কেনার সময়ে বাকি ক্রেতাদের মতো বুকিং করে অপেক্ষা করতে চাননি তিনি। দ্রুত ডেলিভারির দাবি করেছিলেন। কিন্তু তা কোনও কারণে সম্ভব হয়নি। তাই ব্যক্তিগত রোষ মেটাতেই এমন বিধান দিয়েছেন আধিকারিক!

দেশের অন্যান্য আরটিওগুলিতে জলপাই রঙের বাইকের রেজিস্ট্রেশন করাতে কোনও সমস্যা হয়নি। সহজেই রেজিস্ট্রেশন হয়েছে। অন্যদিকে বিশেষজ্ঞরা বলছেন, সেনাবাহিনী এই ধরনের সবুজ রং ব্যবহার করে না। জাওয়া ফোর্টি টু-এর সবুজটি রঙ গ্যালাক্টিক গ্রিন। কাজেই সেনাবাহিনী সবুজের যে রঙ ব্যবহার করে তা এটি নয়। ফলে রেজিস্ট্রেশন না-পাওয়ার কোনও প্রশ্নই উঠছে না। এ ব্যাপারে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়ার আশ্বাস দেন সিইও।