প্রসেনজিৎ চৌধুরী: নির্বাচনের আগেই বোঝা গিয়েছিল ক্ষমতার কাছাকাছি থাকার নীল নকশা ছকে নিয়েছেন প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি হুসেইন মহম্মদ এরশাদ৷ প্রথমে ৩০০ আসনে লড়াই করার হুঙ্কার, পরে নরম হয়ে সরকারি জোটে গিয়ে ভোট লড়াই করেছেন৷ এমনকি তাঁর দল জাতীয় পার্টি (জাপা) বন্ধুত্বপূর্ণ লড়াইয়ের বিভিন্ন আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থীকে দান ছেড়ে দিয়েছে৷ এখন ভোট পরবর্তী সমীকরণ বলছে, সরকারি জোটে লড়েও জাতীয় সংসদের বিরোধী দলের তকমা পেতেই মুখিয়ে রয়েছে এরশাদের দল৷

বৃহস্পতিবার জাতীয় পার্টির সংসদীয় বোর্ড বিশেষ বৈঠকে স্থির করতে চলেছে তাদের অবস্থান৷ ঢাকার রাজনৈতিক মহলে গুঞ্জন- এ আর নতুন কি হইব৷ এরশাদ মিঞার দল অপোজিশান হতে চায়৷ আর সংবাদ মাধ্যমের খবর, সংগঠনের মহাসচিব মশিউর রহমান রাঙ্গা বৈঠক শেষে অবস্থান জানিয়ে দেবেন৷

ঢাকার অভিজাত এলাকা বনানী৷ সেখানেই জাতীয় পার্টির সুপ্রিমো তথা প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি হুসেইন মহম্মদ এরশাদের কার্যালয়৷ সেখানে হতে চলেছে ভোট পরবর্তী বিশেষ বৈঠক৷ জানা গিয়েছে, বৃহস্পতিবারই নবনির্বাচিত সংসদ সদস্যদের শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে বঙ্গভবনে। এরপর নির্বাচিত সংসদ সদস্যদের নিয়ে গঠিত জাতীয় পার্টির পার্লামেন্টারি বোর্ড বৈঠক৷ সেখানেই সরকারি জোটে থেকে বিরোধী দলের তকমা পাওয়ার ফর্মুলায় চূড়ান্ত শিলমোহর পড়তে চলেছে৷

পড়ুন: পদ্মাপারে ভোট: দাপুটে কমল গুহর বন্ধু এরশাদ ফের চমক দিতে তৈরি

গত দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর অভিনব ভূমিকা নিয়েছিল প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি তথা ‘কুখ্যাত’ সামরিক সরকারের প্রধান হুসেইন মহম্মদ এরশাদের দল জাতীয় পার্টি৷ আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে ব্যাপক রিগিংয়ের অভিযোগ তুলে বিরোধী বিএনপি জোটের নেত্রী খালেদা জিয়া ভোট বয়কটের পথে হাঁটলেন৷ আর জাতীয় পার্টির নেতা এরশাদের স্ত্রী রওশন সেই সুযোগে স্বামীকে বিদেশে (পড়ুন সিঙ্গাপুর) পাঠিয়ে দিলেন৷ তারপরেই জাপা নেত্রী হিসেবে তিনি সংসদের বিরোধী নেতা নির্বাচিত হন৷ আর এরশাদকে করে দেওয়া হয় সরকারের দূত৷

পরে শেখ হাসিনা সরকারের সঙ্গে দূরত্ব আরও কমেছে ‘তথাকথিত বিরোধী’ এরশাদের৷ নির্বাচনকালীন সরকারের মন্ত্রিসভায় রয়েছে জাপা সংসদ সদস্যরা৷ পাশাপাশি বিরোধী দলেও আছে। অভিনব এই অবস্থান উপমহাদেশের সংসদীয় রাজনীতির ইতিহাসে বিরল বলা চলে৷

এরশাদ পত্নী রওশনের সমর্থনে নির্বাচনে ব্যাপক ‘খাটা-খাটনি’ করেছে আওয়ামী লীগ৷ কার্যত তাদের আনুকূল্যেই ২২টি আসনে মসৃণ জয় পেয়েছে জাতীয় পার্টি৷ বাংলাদেশে একমাত্র রংপুরেই এরশাদের বিশেষ ক্ষমতা৷ সেখানকার ‘রাজা’ হয়েই থাকলেন প্রবীণতম এই রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব৷ আর তাঁকে নিশ্চিন্তে রেখেই ক্ষমতার কেন্দ্রে এনে রাখলেন টানা তৃতীয়বারের জন্য প্রধানমন্ত্রী হওয়া শেখ হাসিনা৷

একদা এরশাদ জমানায় গণতন্ত্র বাঁচানোর দাবিতে রাজপথের বিদ্রোহিণী হাসিনা এখন এরশাদেরই রাজনৈতিক নিয়ন্ত্রক৷