ইসলামাবাদ: বল হতে বুমরাহ যতই বিশ্বর‍্যাংকিংয়ের মগডালে থাকুক না কেন, তিনি আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে এখনও সক্রিয় থাকলে রাতের ঘুম কেড়ে নিতেন ভারতের তরুণ ফাস্ট বোলারের। বললেন প্রাক্তন পাক অল-রাউন্ডার আব্দুল রজ্জাক।

ক্রিকেট পাকিস্তানের ইউ টিউব চ্যানেলে দেওয়া একটি সাক্ষাৎকারে রজ্জাক বলেন, কেরিয়ারে বুমরাহর তুলনায় অনেক ভালোমানের বোলারদের মুখোমুখি হয়েছেন তিনি। এপ্রসঙ্গে প্রাক্তন পাক অল-রাউন্ডারের কথায়, ‘আমার সময়ে বিশ্বের সেরা বোলারদের ফেস করার পর বুমরাহর মত বোলারকে সামলানোটা কোনও সমস্যাই নয়। বরং উলটে চাপ থাকত বুমরাহর উপরেই।’ তিনি আরও বলেন, ‘গ্লেন ম্যাকগ্রা-ওয়াসিম আক্রমদের মত সেরা বোলারদের বিরুদ্ধে খেলেছি আমি। সুতরাং, বুমরাহ আমার সামনে শিশুর মত। খুব সহজেই আমি অর উপর ছড়ি ঘোরাতে পারতাম ও আক্রমণ করতে পারতাম।’

উল্লেখ্য, সাম্প্রতিক সময়ে যে কোনও ফর্ম্যাটে বিশ্বের তাবড় তাবড় ব্যাটসম্যানদের ত্রাস ভারতের পেস বোলিং সেনসেশন জসপ্রীত বুমরাহ। ওয়ান-ডে ক্রিকেটে শীর্ষস্থানে এবং টেস্ট ক্রিকেট র‍্যাংকিংয়ে এই মুহূর্তে পঞ্চমস্থানে আমেদাবাদের এই পেসার। বিশ্বের প্রথম সারির ব্যাটসম্যানরা এমনকি ক্রিকেট বিশেষজ্ঞদের প্রায় প্রত্যেকেই একমত বুমরাহর মত অস্ত্র যে কোনও অধিনায়কের কাছে সম্পদ। কোহলিও স্বীকার করে নিয়েছেন সেকথা। অথচ ভারতীয় পেস বোলিং সেনসেশনকে এহেন আক্রমণের পথ বেছে নেওয়ায় স্বাভাবিকভাবেই ভারতের ক্রিকেট অনুরাগীদের চক্ষুশূল হয়েছেন রজ্জাক।

১৯৯৬-২০১১ পাকিস্তানের হয়ে ওয়ান-ডে ক্রিকেটে প্রতিনিধিত্ব করেছেন রজ্জাক। এরমধ্যে ২০০২ অল-রাউন্ডার হিসেবে বিশ্ব র‍্যাংকিংয়ে দু’নম্বরে উঠে আসাটা উল্লেখযোগ্য। এহেন রজ্জাক বুমরাহ প্রসঙ্গে আরও বলেন, ‘বুমরাহ খুব ভালো পারফরম্যান্স করছে সন্দেহ নেই। ও উন্নতিও করেছে প্রচুর। অদ্ভুত বোলিং অ্যাকশন এবং সিমটাকে দারুণভাবে ব্যবহার করে বলে ওর বোলিং এতটা প্রভাবশালী।’ পাশাপাশি দেশের অনুর্ধ্ব-১৯ দলে কোচ হতে চেয়ে তিনি ক্রিকেট বোর্ডের কাছে দরবার করেছিলেন বলেও জানান রজ্জাক।

এর আগে ২০১৯ বিশ্বকাপ চলাকালীন ভারতীয় দলের অল-রাউন্ডার হার্দিক পান্ডিয়াকে নিয়েও মন্তব্য করে সাড়া ফেলে দিয়েছিলেন এই প্রাক্তন পাক অল-রাউন্ডার। বলেছিলেন, ‘পান্ডিয়া প্রতিভাবান কিন্তু ওর খেলায় অনেক দুর্বলতা আছে যেগুলো ঝেড়ে ফেলতে হবে। পান্ডিয়াকে বিশ্বের সেরা অল-রাউন্ডার বানাতে প্রয়োজনে তিনি পান্ডিয়াকে প্রশিক্ষণ দিতেও রাজি বলে জানিয়েছিলেন রজ্জাক।