টোকিও: ফের দেখা দিল সুনামী আতঙ্ক। দেখা গেল সেই মাছ। যা দেখা গিয়েছিল ২০০৪ সালের সুনামির আগে। জাপানি ভাষাতে যার নাম রিউগু নো সুকাই। জাপানিরা মনে করেন এই মাছ সমুদ্রের নীচ থেকে বয়ে আনে ধ্বংসের বার্তা। যার জেরে এখন রীতিমত আতঙ্কে জাপানের সাধারণ মানুষজন।

জাপানের তয়ামা এলাকাতে এই মাছটি ধরা পড়েছে। এই ওরফিশ যদিও বিরল প্রজাতির একটি মাছ। জানা গিয়েছে এখনও পর্যন্ত মোট ছয়টি এই প্রজাতির মাছ ধরা পড়েছে। সেই কারণেই আতঙ্কে দিন কাটাচ্ছেন সমুদ্র উপকুলের মানুষজন। যদিও বিজ্ঞানীরা এই যুক্তি মানতে নারাজ। কিন্তু জাপানিরা বিশ্বাস করে এই মাছ উঠে আসা মানে কোন ধ্বংসের খবর সঙ্গে করে নিয়ে আসা।

২০১৮ সালে ইন্দিনেশিয়াতে হওয়া সুনামিতে মৃতের সংখ্যা ৪০০ ছাড়িয়েছিল বলে জানা গিয়েছে। ঘরছাড়া হয়েছিল হাজার হাজার মানুষ। এর আগেও সুনামির ধ্বংসলীলা দেখেছিল ভারত, শ্রীলঙ্কা, থাইল্যান্ড, মালদ্বীপ, মালয়েশিয়া এবং যথারীতি ইন্দোনেশিয়া।

২০০৪ সালের ডিসেম্বর মাসে আন্দামান সহ ইন্দোনেশিয়া ও শ্রীলঙ্কা, মলদ্বীপ থাইল্যান্ড ভয়ানক সুনামির সাক্ষী হয়েছিল। মারা গিয়েছিল অসংখ্য মানুষজন। পাশাপাশি গৃহহীন হয়েছিল অসংখ্য মানুষজন। ধ্বংস হয়ে গিয়েছিল সব কিছু।

জানা গিয়েছে তার আগেও এই মাছ উঠে এসেছিল সমুদ্র উপকুলে। আর তারপরেই হয়েছিল সুনামী। যার জেরে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছিল ইন্দোনেশিয়া, জাপানের বেশ কিছু জায়গা। এছাড়াও ২০১১ সালে এই মাছ নিয়ে জাপানিদের মধ্যে দেখা দিয়েছিল আতঙ্ক। সেবারেও বেশ কিছু মাছ উঠে এসেছিল উপকূলে। আর তারপরেই ভয়ঙ্কর সুনামী হয়েছিল। তাই এবারে ওই মাছ দেখে আঁতকে উঠেছে জাপানবাসিরা।