টোকিও: পরিকল্পনা আগেই করা হয়েছিল। করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ক্রমশ বেড়ে যাওয়ায় অবশেষে জাপানের রাজধানী টোকিও সহ একাধিক জায়গায় এমার্জেন্সি ঘোষণা করা হল।

মঙ্গলবার এই ঘোষণা করলেন সেদেশের প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে।

ইতিমধ্যেই জাপানের সাড়ে ৩ হাজারেরও বেশি মানুষ মারণ এই ভাইরাসের সংক্রমণের শিকার হয়েছেন। কোভিড-19 এ আক্রান্ত হয়ে ইতিমধ্যেই জাপানে ৮৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। জাপানের রাজধানী টোকিওতে ব্যাপক হারে করোনার সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়েছে। মারণ ভাইরাসের সংক্রমণ এড়াতে ইতিমধ্যেই টোকিওতে একাধিক সতর্কতামূলক পদক্ষেপ করেছে সরকার। জানা গিয়েছে, শুধু টোকিওতেই ইতিমধ্যে হাজারেরও বেশি মানুষ করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। আর এর ফলেই টোকিওতে হতে চলা ২০২০ অলিম্পিক৷

জানা গিয়েছে, বিশ্বের অন্যান্য দেশের পথে হেঁটে গোটা দেশেই লকডাউন ঘোষণার পথে যাবেন না প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে। সাধারণ মানুষকে করোনার সংক্রমণ সম্পর্কে আরও সচেতন করা হবে। প্রথমত মানুষকে বাইরে না বেরিয়ে বাড়িতে থাকার আবেদন জানানো হবে। সমস্ত বাণিজ্যিক কাজকর্ম বন্ধ করা হবে। করোনার সংক্রমণ রুখতে কী কী করণীয় ইতিমধ্যেই সেদেশে সে সম্পর্কে মানুষকে সচেতন করার কাজ চালিয়ে যাচ্ছে সরকার।

মনে করা হচ্ছে, প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে জরুরি অবস্থা ঘোষণা করলে, সেদেশের চিত্রটাও বদলাতে বাধ্য। করোনা ভাইরাসের আক্রমণের জেরে জাপানে অর্থনৈতিক মন্দার পরিবেশ তৈরি হয়েছে। ইতিমধ্যেই মন্দার হাত থেকে বাঁচতে ব্লুপ্রিন্ট তৈরি করেছে জাপান সরকার। অর্থনৈতিক মন্দা এড়াতে একশো বিলিয়ন ডলারের বিশেষ প্যাকেজের ঘোষণা সম্ভবত চলতি সপ্তাহেই ঘোষণা করতে পারেন জাপানের প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে।

এদিকে, এই মুহূর্তে ইনটেনসিভ কেয়ার ইউনিট বা আইসিইউ-তে রয়েছেন ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন। মঙ্গলবার পাওয়া রিপোর্ট অনুযায়ী, এখনও ভেন্টিলেটরে দেওয়া হয়নি তাঁকে। তবে অক্সিজেন সাপোর্ট দিতে হচ্ছে। সোমবারই আইসিইউ-তে নিয়ে যাওয়া হয় তাঁকে। রবিবার ভর্তি হন হাসপাতালে।

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম ‘স্কাই নিউজ’ তাদের প্রতিবেদনে লন্ডনের মেডিক্যাল অধ্যাপক ডেরেক হিলের বক্তব্য উল্লেখ করেছেন। তিনি বলেছেন, ‘করোনা আক্রান্ত রোগীদের অক্সিজেনের অভাব ঘটে। আর বরিস জনসন এই মুহূর্তে খুবই অসুস্থ। তাঁর শ্বাস নেওয়ার জন্য বিশেষ ব্যবস্থা করা হচ্ছে।’

গত মাসের শেষে করোনার সংক্রমণ ধরা পড়ে ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনের শরীরে। বাড়িতেই ছিলেন তিনি। কিন্তু তাঁর শারীরিক অবস্থার অবনতি হওয়ায় তাঁকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

জানা গিয়েছে, তাঁর শরীরে করোনার উপসর্গগুলো ক্রমশ খারাপের দিকে যাচ্ছে। তাই তাঁকে তড়িঘড়ি ইনটেনসিভ কেয়ারে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।া