সরানস্ক: বিশ্বকাপে অঘটন অব্যাহত! এবার কলম্বিয়া হারল জাপানের কাছে৷ ১৭ ম্যাচ পর বিশ্বকাপে দক্ষিণ আমেরিকার কোনও প্রতিদ্বন্ধীর বিরুদ্ধে জয় পেল এশিয়ার কোনও দেশ৷

এইচ গ্রুপের লড়াইয়ে শক্তিশালী কলম্বিয়াকে ২-১ গোলে হারাল জাপান৷ ব্রাজিল বিশ্বকাপে এই জাপানকেই ৪-১ গোলে হারিয়েছিল কলম্বিয়া৷ রাশিয়ার রণক্ষেত্রে সেই ম্যাচেরই যেন বদলা নিল এশিয়ান জায়েন্টরা৷

ম্যাচের প্রথমার্ধে ২ মিনিটের মাথায় বক্সের মধ্যে হ্যান্ডবল করলে লাল কার্ড দেখে মাঠ ছাড়েন কলম্বিয়ান ফুটবলার কার্লোস স্যাঞ্চেজ৷ মাত্র ২ মিনিটে পোনাল্টি পেয়ে কোনও ভুল করেনি জাপান৷ পেনাল্টিতে গোল করে নীল সামুরাইদের এগিয়ে দেন কাগাওয়া৷

চলতি বিশ্বকাপে এটি ৯ নম্বর পেনাল্টি৷ অন্যদিকে বিশ্বকাপের ইতিহাসে এটি দ্বিতীয় দ্রুততম লাল কার্ড৷ ৮৬ বিশ্বকাপে স্কটল্যান্ডের বিরুদ্ধে ৫৪ সেকেন্ডে লাল কার্ড দেখে মাঠ ছেড়েছিলেন উরুগুয়ান ফুটবলার জোসে আলবার্তো বাতিস্টা৷ প্রথমার্ধে নীল সামুরাইদের আক্রমণে প্রতিরোধ তৈরি করতে কলম্বিয়াকে হিমশিম খেতে হয়৷

দশ জনে খেললেও লড়াই করে একসময় সমতায় ফেরে কলম্বিয়া৷ ৩৮ মিনিটে ফ্রি-কিক থেকে জাপানের জালে বল ঠেলে দেন কলম্বিয়ার ফুটবলার কুইন্টারো৷ এটিকে বিশ্বকাপের অন্যতম নিম্মমানের গোল বলা চলে৷ জাপানের মানবপ্রাচীর কলম্বিয়ার বিরুদ্ধে কোনও প্রতিরোধই গড়ে তুলতে পারেনি৷ বলে কিক করার সময় মানবপ্রাচীর লাফালে, মাটি ঘেঁষা শটে গোল করেন কুইন্টারো৷ চলতি বিশ্বকাপে ডাইরেক্ট ফ্রি-কিক হিসেবে এটি চতুর্থ গোল৷

সমতায় ফিরলেও দ্বিতীয়ার্ধে জাপানকে ছাপিয়ে যেতে পারেননি কলম্বিয়া৷ দ্বিতীয়ার্ধে ৭৩ মিনিটে ওসাকোর হেডে ফের এগিয়ে যায় জাপান৷ শেষ বাঁশি বাজার ১৭ মিনিট আগে জাপানের গোলটিই কলম্বিয়ার কফিনে শেষ পেরেক৷

চলতি বিশ্বকাপের আর্জেন্তিনা, জার্মানি, ব্রাজিলের পর আর এক এলিট দল কলম্বিয়া মুখ থুবড়ে পড়ল৷ মেসি-নেইমাররা তাঁদের প্রথম ম্যাচে এক পয়েন্ট পকেটে পুড়তে পারলেও রাশিয়ায় অভিযান ম্যাচে রগরিগেজদের ফিরতে হল খালি হাতে৷