পানাজি: ডার্বি জিতে শুক্রবার সার্জিও লোবেরার মুম্বইকে এমনিতেই বেশ চাপে ফেলে দিয়েছিল এটিকে-মোহনবাগান। আর ঠিক পরদিনই সেই চাপের প্রেসার কুকারে থেকে ম্যাচ হেরে বসল মুম্বই সিটি এফসি। জামশেদপুর এফসি’র কাছে হেরে লিগ শিল্ড উইনারের রাস্তা দুর্গম করে ফেলল লোবেরার ছেলেরা। অন্যদিকে ১৮ ম্যাচ শেষে পাঁচ পয়েন্টে এগিয়ে থেকে এএফসি চ্যাম্পিয়ন্স লিগের রাস্তা আরও সুগম হল এটিকে মোহনবাগানের। ওয়েন কয়েলের ছেলেদের কাছে এদিন ১-২ গোলে হারল মুম্বই। দ্বিতীয়ার্ধে জামশেদপুরের হয়ে গোল দু’টি করেন বরিস সিং এবং ডেভিড গ্রান্ডে।

টানা দু’টি ম্যাচ হেরে চলতি আইএসএলে যে মুম্বই সবচেয়ে কঠিন পরিস্থিতির সম্মুখীন এই মুহূর্তে সেবিষয়ে কোনও সন্দেহ নেই। আর জামশেদপুরের হারের অর্থ আগামী সোমবার হায়দরাবাদের বিরুদ্ধে তিন পয়েন্ট পেলেই কাঙ্খিত লিগ শিল্ড উইনার হিসেবে আগামী মরশুমে এএফসি চ্যাম্পিয়ন্স লিগ খেলবে হাবাসের দল। সেক্ষেত্রে আগামী ২৮ ফেব্রুয়ারি এটিকে মোহনবাগান বনাম মুম্বই সিটি এফসি ম্যাচ কার্যত নিয়মরক্ষার হয়ে দাঁড়াবে। তাই সোমবার হায়দরাবাদের বিরুদ্ধে এটিকে মোহনবাগানের হারের প্রত্যাশী হয়ে বসে থাকা ছাড়া কোনও উপায় নেই লোবেরার দলের কাছে।

গত ম্যাচে হাবাসের দলের বিরুদ্ধে শেষ মুহূর্তে পয়েন্ট খোয়ানোর পর এদিন মুম্বইয়ের বিরুদ্ধে হোমওয়ার্ক করেই মাঠে নেমেছিল জামশেদপুর। কয়েলের দল হাই-প্রেসিং ফুটবল খেলার চেষ্টা করলেও প্রথম ৪৫ মিনিটে সেই অর্থে ঘটনাবহুল ছিল না। দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতেও একইভাবে মুম্বইয়ের গোলমুখে অনেক বেশি হানা দিতে থাকে জামশেদপুর। আইজ্যাকের ক্রস থেকে ফারুখ চৌধুরির প্রয়াস অমরিন্দরের দস্তানায় প্রতিহত হয়।

৭২ মিনিটে অবশেষে মুম্বই রক্ষণের লকগেট খুলতে সক্ষম হয় জামশেদপুর। আইতর মনরয়ের কর্নার থেকে ফারুখ চৌধুরির দুরন্ত ফ্লিক অমরিন্দর আংশিক প্রতিহত করলে ফাঁকায় দাঁড়িয়ে থাকা পরিবর্ত বরিস সিং গোলে বল ঠেলতে কোনও ভুল করেননি। পালটা সমতায় ফেরায় সুযোগ এসেছিল মুম্বইয়ের কাছে। কিন্তু সাই গড্ডার্ডের কর্নার থেকে ফ্রি-হেডার নষ্ট করেন মোর্তাদা ফল। সংযুক্তি সময়ের প্রথম মিনিটে মনরয়ের ঠিকানা লেখা পাস বক্সে দুরন্ত ট্র্যাপ করেন ডেভিড গ্রান্ডে। এরপর অমরিন্দরকে পরাস্ত করে নিশানায় অব্যর্থ থেকে জামশেদপুরের তিন পয়েন্ট নিশ্চিত করেন স্প্যানিশ স্ট্রাইকার।

হারের ফলে ১৮ ম্যাচে ৩৪ পয়েন্ট নিয়ে লিগ টেবিলে দু’নম্বরে রইল মুম্বই। অন্যদিকে প্লে-অফের আশা হারালেও ১৯ ম্যাচে ২৪ পয়েন্ট নিয়ে অবস্থান উন্নত করল রেড মাইনার্সরা।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।