নয়াদিল্লি: চলতি বছরের শেষেই সম্ভব হবে জম্মু-কাশ্মীরের বিধানসভা ভোট৷ নির্বাচন কমিশনের তরফে জানানো হয়েছে৷

অমরনাথ যাত্রা শেষ হলে কমিশন উপত্যাকার বিধানসভা ভোট নিয়ে চিন্তা ভাবনা করবে বলে জানা গিয়েছে৷
হিংসায় দীর্ণ জম্মু-কাশ্মীর৷ জঙ্গি দমন নিয়ে মতভেদ হয় রাজ্যের জোট সরকারের দুই শরিক পিডিপি ও বিজেপির৷ তিন বছরের সম্পর্ক ভেঙে দেওয়া হয় গেরুয়া শিবিরের পক্ষে৷ ২০১৮ সালের জুনে এই সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগে জম্মু-কাশ্মীরে দলীয় বিধায়ক, নেতাদের সঙ্গে কথা বলেন বিজেপির সর্ব ভারতীয় সভাপতি অমিত শাহ। তারপরই পদক্শেপ করে পদ্ম শিবির৷

আরও পড়ুন: ইফতার নিয়ে বিতর্কিত পোস্ট, গিরিরাজকে ধমকালেন অমিত শাহ

সেই থেকে জম্মু-কাশ্মীরে জারি রয়েছে রাষ্ট্রপতি শাসন৷ সংবিধান অনুযায়ী রাষ্ট্রপতি শাসন লাগুর পরের ছয় মাস তা বলবৎ রাখা যায়৷ কিন্তু বিশেষ ক্ষেত্রে তা বাড়ানোও যায়৷ ২০১৮ সালে ডিসেম্বরে রাজ্যে রাষ্ট্রপতি শাসনের মেয়াদ আরও চয় মাস বৃদ্ধি করা হয়েছিল৷ যার মেয়াদ শেষ হচ্ছে ২০১৯ সালের ৩১ জুন৷ জানা গিয়েছে সেই মেয়াদ ফের পরে ছয় মাসের জন্য বাড়ানো হবে৷

কমিশন সূত্রে খবর, ১লা জুলাই থেকে অমরনাথ যাত্রা শুরু হচ্ছে৷ যা চলবে আগামী ৪৬ দিন৷ ১৫ই অগাষ্ট শ্রাবণ পূর্মিমার মধ্যে দিয়ে শেষ হবে যাত্রা৷ তারপরই কমিশন আলোচনায় বসবে জম্মু-কাশ্মীরের বিধানসবা ভোট নিয়ে৷ আলোচনায় মতানৈক্যের ভিত্তিতে জানোন হবে উপত্যাকার ভোটের দিনক্ষণ৷ কমিশনের তরফে জানানো হয়েছে, জম্মু-কাশ্মীরের আইন-শৃঙ্খলা ও পরিস্থিতি নিয়ে পুঙ্খানুপুঙ্খ নজর রাখা হয়েছে৷ বিভিন্ন সূত্র মারফৎও খবর নেওয়া হচ্ছে৷ অমরনাথ যাত্রা শেষ হলে বিবেচনা করা হবে পুরো বিষয়টির৷

আরও পড়ুন: মেসেজ বক্সে ‘জয় হিন্দ’, তৃণমূলের রুচি নিয়ে সরব সাংসদ লকেট

লোকসভার সঙ্গেই দেশের বেশ কয়েকটি রাজ্যে বিধানসভা ভোট অনুষ্ঠিত হয়েছে৷ জম্মু-কাশ্মীরেও লোকসভার সঙ্গেই বিধানসভা ভোট হবে বলে মনে করা হয়েছিল৷ কমিশনের ফুল বেঞ্চ রাজ্যের নির্বাচনী আধিকারিক ও তাঁর সহযোগিদের সঙ্গে আলোচনা করেন৷ পরে কমিশনের তরফে জানানো হয়, একসঙ্গে দু’টি ভোট করার পরিস্থিতি নেই সেখানে৷ তাই রাজ্যের পাঁচ আসনে নির্বিঘ্নে লোকসভা ভোট করতেই তৎপর হয় কমিশন৷

সদ্য সমাপ্ত লোকসভা ভোট হয়েছে শান্তিপূর্ণভাবেই৷ এবার তাই কমিশনের নজরে বিধানসভা ভোট৷ তবে সময় নিয়েই সুষ্ঠুভাবেই তা সম্পন্ন করতে চাইছে নির্বাচন কমিশন৷