ফাইল ছবি

স্টাফ রিপোর্টার,জলপাইগুড়ি: অতি সক্রিয় মৌসুমী অক্ষরেখা। আর যার জেরে গত কয়েকদিন ধরে প্রবল বৃষ্টিতে ভিজছে উওরবঙ্গ। বিপর্যয় এড়াতে জারি রয়েছে লাল সতর্কতা।

আর এরমধ্যে বিকল হয়ে গেল জলপাইগুড়ির কেন্দ্রীয় আবহাওয়া দফতরের একমাত্র ল্যান্ড ফোন। লকডাউনের মধ্যে চরম যোগাযোগ সমস্যায় জলপাইগুড়ির এই কেন্দ্রীয় হাওয়া অফিস।

জলপাইগুড়ি ইন্দিরা কলোনীতে অবস্থিত কেন্দ্রীয় আবহাওয়া দফতরের যোগাযোগের মাধ্যম হিসেবে এই একটি ল্যান্ড ফোনই ভরসা। আর সেই ল্যান্ড ফোনের মাধ্যমে সেচ দফতর থেকে শুরু করে উত্তরবঙ্গ বন্যা নিয়ন্ত্রণ পর্ষদ, বিপর্যয় মোকাবিলা দফতর সহ আরও বিভিন্ন দফতর গুলি সহ কলকাতা বা দিল্লী হাওয়া অফিসে আবহাওয়া সংক্রান্ত রিপোর্ট আপডেট করেন এই দফতরের কর্মী ও আধিকারিকেরা।

আর যোগাযোগের একমাত্র অবলম্বন হিসেবে ঘন ঘন এই ল্যান্ড ফোন বিকল হওয়ায় আবহাওয়া সংক্রান্ত যাবতীয় রিপোর্ট পাঠাতে গিয়ে বিপাকে পড়তে হচ্ছে হাওয়া অফিসের কর্মীদের। নিজেদের ফোন ব্যাবহার করে কোনওরকমে চালাতে হচ্ছে অফিস।

এদিকে প্রায় দু সপ্তাহের বেশি সময় ধরে উত্তরবঙ্গের বিভিন্ন জেলার সঙ্গে জলপাইগুড়িতেও ভারী থেকে অতিভারী বৃষ্টি পাতের পূর্বাভাস দিয়েছিল। যা নিয়ে কেন্দ্রীয় আবহাওয়া দফতর ইতিমধ্যে বেশ কয়েকবার চরম সতর্কতা জারিও করেছিল।

আবহাওয়া অফিসের পূর্বাভাস অনুযায়ী, তিস্তায় বন্যা এবং পাহাড়ে ধস নেমেছিল। পরিস্থিতি সামাল দিতে বিপর্যয় মোকাবিলায় বাহিনীকে নামাতে হয়েছিল।

এরই মধ্যে ফের কেন্দ্রীয় আবহাওয়া দফতর থেকে লাল সর্তকতা জারি করা হয়েছে। এছাড়াও ১৯ থেকে ২১ জুলাই পর্যন্ত নতুন করে প্রবল বৃষ্টি পাতের সতর্কতা জারি করেছে। যার ফল স্বরুপ বন্যা এবং ধস এই জোড়া ফলায় বিদ্ধ জেলা গুলিতে সমস্যা বাড়ার ইঙ্গিত দেওয়া হয়েছে। আর এই পরিস্থিতিতে দফতরের ফোন বিকল থাকায় যোগাযোগ সমস্যায় পড়েছে জলপাইগুড়ি আবহাওয়া দফতরের কর্মীরা।

এই বিষয়ে দফতরের আবহাওয়া বিজ্ঞানী রনেন্দ্র সরকার অভিযোগ করে বলেন, “একটু বৃষ্টি হলেই তাঁদের একমাত্র ল্যান্ড ফোন বিকল হয়ে যায়। অভিযোগ জানালে বিএসএনএল কর্তৃপক্ষ এসে ফোন ঠিক করে দেয়। কিন্তু আবার বৃষ্টি হলেই ফোন বিকল হয়ে যায়। আজকেও ফোন বিকল হয়ে রয়েছে।এই ফোন বিকল থাকলে আবহাওয়া সংক্রান্ত কোনও রিপোর্ট গুরুত্বপূর্ণ দফতর গুলিতে আপডেট করা কার্যত অসম্ভব হয়ে পড়ে। আমরা সোমবার আবার অভিযোগ জানিয়েছি।এর একটা স্থায়ী সমাধান করুক বিএসএনএল কর্তৃপক্ষ। নইলে অফিস চালাতে সমস্যা বাড়ছে।”

ঘটনায় বিএসএনএলের আধিকারিক কৌশিক মুখোপাধ্যায় বলেন, “কেন্দ্রীয় আবহাওয়া দফতরের টেলিফোন লাইনটি আমাদের শান্তি পাড়া এক্সচেঞ্জ এর অন্তর্ভুক্ত। ঐ এক্সচেঞ্জে কিছু যান্ত্রিক ত্রুটি আছে।যার ফলে এই সমস্যা। আমরা দ্রুততার সঙ্গে সমস্যা সমাধানের চেষ্টা চালাছি।”

পচামড়াজাত পণ্যের ফ্যাশনের দুনিয়ায় উজ্জ্বল তাঁর নাম, মুখোমুখি দশভূজা তাসলিমা মিজি।