জলপাইগুড়ি: মঙ্গলবার সকাল থেকেই বৃষ্টি শুরু জলপাইগুড়ি‌তে। লাগাতার বৃষ্টি এবং নিম্নচাপের জেরে ফের জাঁকিয়ে শীত পড়েছে গোটা জলপাইগুড়ি জুড়ে। তাপমাত্রাও কমেছে অনেকটাই। মঙ্গলবার সকাল থেকে একবারের জন্যেও সূর্যের দেখা মেলেনি। বৃষ্টি হয়েছে সোমবার রাতেও।

মঙ্গলবার সকাল থেকেই জলপাইগুড়ি সহ গোটা ডুয়ার্স এলাকায় মুষলধারায় বৃষ্টি ঝড়েছে। কখনও ছিল মাঝারি মাপের বৃষ্টি তো মুষলধারে বৃষ্টি শুরু হয়েছে। ফলে দিনভর অতিরিক্ত ঠান্ডার পরিবেশ ছিল জলপাইগুড়ি শহর সহ গোটা ডুয়ার্স জুড়ে। রাস্তায় এদিন লোকজনের ভিড় অনেকটাই কম ছিল। বৃষ্টি ভেজা রাস্তায় সকলের হাতেই দেখা যায় ছাতা। গায়ে ছিল চাদর ও শীতের মোটা পোশাক। আবহাওয়া দফতর সূত্রে জানা গিয়েছে রাতেও হালকা বৃষ্টি হওয়ার সম্ভবনা রয়েছে। এদিন বিভিন্ন বাজারের দোকানগুলিতে একেবারেই খদ্দের ছিল না।

জেলায় জেলায় চলছে বৃষ্টি। দিনভর কলকাতা সহ দক্ষিণবঙ্গের প্রত্যেকটি জেলায় এই বৃষ্টি চলবে বলে জানাচ্ছে আলিপুর আবহাওয়া দফতর। সৌজন্যে বিহার ঝাড়খণ্ড লাগোয়া ঘূর্ণাবর্ত। ভারী বৃষ্টির সতর্কতা রয়েছে পাহাড়ের জেলাগুলিতে। বিহার এবং ওডিশায় ৩০ থেকে ৪০ কিলোমিটার বেগে ঝড়ো হাওয়া বইতে পারে। তবে পশ্চিমবঙ্গের জেলাগুলিতে সারাদিন ভারী বৃষ্টির সতর্কতা জারি করা হয়েছে।

মূলত ভোররাত থেকেই বৃষ্টি শুরু হয়েছে গাঙ্গেয় পশ্চিমবঙ্গের জেলাগুলিতে। দিনের আলো ফোটার সঙ্গে সঙ্গে বেড়েছে বৃষ্টির পরিমাণ। টিপটিপ থেকে ঝিরঝিরে হয়েছে বৃষ্টির ধরন। অফিস যাওয়ার সময় শুরু হয়ে গিয়েছে কলকাতাসহ রাজ্যের প্রত্যেকটি জেলাতেই। ফলে বসন্তের এই বৃষ্টি সাধারণ মানুষকে সমস্যার মধ্যে ফেলবে। আজ দিনভর এই সমস্যা চলবে বলে জানাচ্ছে হাওয়া অফিস।

মূলত ভোররাত থেকেই বৃষ্টি শুরু হয়েছে গাঙ্গেয় পশ্চিমবঙ্গের জেলাগুলিতে। দিনের আলো ফোটার সঙ্গে সঙ্গে বেড়েছে বৃষ্টির পরিমাণ। টিপটিপ থেকে ঝিরঝিরে হয়েছে বৃষ্টির ধরন। অফিস যাওয়ার সময় শুরু হয়ে গিয়েছে কলকাতাসহ রাজ্যের প্রত্যেকটি জেলাতেই। ফলে বসন্তের এই বৃষ্টি সাধারণ মানুষকে সমস্যার মধ্যে ফেলবে। আজ দিনভর এই সমস্যা চলবে বলে জানাচ্ছে হাওয়া অফিস।