বালুরঘাট: জলদাপাড়া অভয়ারণ্যে অগ্নিকান্ডের পিছনে জ্বলন্ত সিগারেট বা অন্তর্ঘাতও থাকার সম্ভাবনা রয়েছে। সোমবার রাতে উত্তরবঙ্গের জলদাপাড়া অভয়ারণ্যে ভয়াবহ আগুন লাগার ঘটনা ঘটে। কি থেকে এই আগুন তা বের করতে বিশেষ কমিটি গঠন করে তদন্ত শুরু হয়েছে। মঙ্গলবার দক্ষিণ দিনাজপুরের বুনিয়াদপুরে এই কথাই জানালেন রাজ্যের বনমন্ত্রী রাজীব বন্দোপাধ্যায়। তিনি বলেন, রাতেই বনকর্মী দমকল পুলিশ ও স্থানীয় প্রশাসনের যৌথ সহযোগিতায় আগুন সম্পূর্ণ ভাবে নেভানো সম্ভব হয়েছে বলে জানিয়েছেন মন্ত্রী।

একই সঙ্গে বনমন্ত্রী আরও বলেন, প্রাথমিক তদন্তে মনে করা হচ্ছে জ্বলন্ত সিগারেটটের টুকরো থেকে আগুন লেগে থাকতে পারে। তবে অন্তর্ঘাতের সম্ভাবনা একেবারেই উড়িয়ে দেওয়া যায় না বলেও বনমন্ত্রী জানিয়েছেন। তবে এহেন ঘটনায় এখনও পর্যন্ত বড় কোনও বন্যপ্রাণীর মৃত্যু ঘটেনি বলেই জানিয়েছেন তিনি। মঙ্গলবার দিনভর এই ব্যাপারে ডিএফও’র নেতৃত্বে বনকর্মীরা তদন্ত করে দেখছেন বলে জানিয়েছেন মন্ত্রী।

প্রসঙ্গত, একশৃঙ্গ গণ্ডারের জন্য বিখ্যাত জলদাপাড়া অভয়ারণ্য দাবানলের গ্রাসে জ্বলছে। পুড়ে গিয়েছে প্রায় ৮ বর্গকিলোমিটার অভয়ারণ্য। এই অরণ্যে একাধিক বন্যজন্তুর বাস। সোমবার রাতে জলদাপাড়া অভয়ারণ্যে আগুন লাগে। অনেকেই মনে করছেন বহু বন্যজন্তুর মৃত্যু হয়েছে। তবে বন দফতর সূত্রে জানানো হয়েছে, আগুন লাগার পর বন্যজন্তুরা আশেপাশের লোকালয়ে ঢুকে পড়ে। মঙ্গলবার সকালে আগুন কিছুটা নিয়ন্ত্রণে এলে ফিরে যায় জঙ্গলে। তাই দাবানলের জেরে এখনও পর্যন্ত কোনও বন্যজন্তুর মৃত্যু হয়নি। ঠিক কী কারণে আগুন লেগেছে সে ব্যাপারে এখনও পর্যন্ত নিশ্চিত কিছু জানা যায়নি। তবে শুকনো পাতা ও খড়কুটোর কারণে দ্রুতই আগুন ছড়িয়ে পড়ে।

যদিও দাবানলের জড়ে একাধিক বন্যজন্তুদের মৃত্যু হতে পারে বলেই মনে করছে পরিবেশপ্রেমীরা। তোর্ষানদীর পাশেই জলদাপাড়া অভয়ারণ্যের মালঙ্গি বিট। সোমবার রাতে হঠাৎ করেই দাবানলের কবলে চলে যায়। নদীর পার্শ্ববর্তী অঞ্চলে ঝোড়ো হাওয়া থাকার কারণে আগুন ছড়িয়ে পড়তে বেশি সময় লাগেনি। প্রাথমিক অনুমানে পাশেপাশের অঞ্চলের মানুষদের কার্যকলাপই আগুন লাগার জন্য দায়ী বলে মনে করছে বন দফতর।

আশেপাশের এলাকা থেকে অনেকেই বন দফতরের নিষেধাজ্ঞার তোয়াক্কা না করে প্রায়দিনই ঢুকে পড়ে সংরক্ষিত অরণ্যে। দাবানলের সঠিক কারণ বের করতে তদন্তে নেমেছে পুলিশ। এই অরণ্য একশৃঙ্গ গণ্ডার ছাড়াও বাইসন, হরিণ, নীলগাই, ময়ূর, হাতির বিচরণ ক্ষেত্র। ৮ বর্গকিলোমিটার আগুনের কবলে চলে যাওয়ায় কিছু সংখ্যক বন্যপ্রাণীর প্রাণহানির আশঙ্কা করছেন অনেকেই। আগুনের তাপে বহু বন্যজন্তু আশেপাশের লোকালয়ে চলে যায়। অন্যদিকে বন্যজন্তুদের লোকালয়ে দেখে আতঙ্কিত মানুষেরা আশ্রয় নিতে শুরু করেছে অন্যত্র।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।