ফাইল ছবি৷

শ্রীনগর: আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে কাশ্মীর অশান্ত করতে ফের সক্রিয় পাক গুপ্তচর সংস্থা আইএসআই৷ আর এই কাজে জইশ-ই-মহম্মদ ও লস্করের মতো জঙ্গি সংগঠনকে কাজে লাগাতে চায় তারা৷ বিভিন্ন সূত্র মারফত এই খবর পেয়েছে ভারতের গুপ্তচর সংস্থাগুলি৷ তারপরেই সতর্ক করে দেওয়া হয়েছে নিরাপত্তা বাহিনী ও কাশ্মীর পুলিশকে৷ ফলে ভোটের মুখে হাই অ্যালার্ট জারি উপত্যকায় সেনা ও পুলিশকে আরও সজাগ ও সতর্ক থাকতে বলা হয়েছে৷

কাশ্মীরের ছ’টি লোকসভা কেন্দ্রে এবার পাঁচ দফায় ভোট হবে৷ প্রথম দফার ভোট ১১ এপ্রিল৷ তার আগে ৫ থেকে ৯ এপ্রিলের মধ্যে কাশ্মীরে বড় ধরনের নাশকতা ঘটাতে চলেছে জঙ্গিরা এমনই খবর পেয়েছে গুপ্তচর সংস্থাগুলি৷ আইএসআই এই হামলার ব্লু প্রিন্ট তৈরি করেছে৷ আর জইশ-ই-মহম্মদ তাতে পুরো মদত দিয়েছে৷ সূত্র মারফত যে খবর পেয়েছে দেশের গুপ্তচর সংস্থাগুলি তাতে উদ্বেগ আরও বেড়ে গিয়েছে৷

ফাইল ছবি

আইএসআই এই হামলার জন্য জইশ ও লস্কর জঙ্গিদের নিয়ে তিনটি গ্রুপ তৈরি করেছে৷ যে ছক তারা কষেছে তাতে কাশ্মীরের বিভিন্ন বুথগুলিতে টার্গেট করা হয়েছে৷ আইএসআইয়ের লক্ষ্যই হল ভোটের আগে উপত্যকায় অস্থিরতার পরিবেশ তৈরি করা, ভোটারদের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে দেওয়া৷ যাতে ভোটের দিনগুলিতে তারা ঘর থেকে না বের হয়৷ এই হামলার জঙ্গিদের নিয়ে বিশেষ বাহিনী প্রস্তুত করা হয়েছে৷ সেই বাহিনীর প্রশিক্ষণ হয়েছে আফগানিস্তানে৷

ভোটের মুখে প্রার্থীদের নিরাপত্তাও বাড়ানো হয়েছে৷ কারণ জানা গিয়েছে, জঙ্গিদের নিশানায় তাঁরাও আছেন৷ প্রার্থীদের এখন ভোট প্রচারে নানা জায়গায় বেরতে হচ্ছে৷ ফলে তাদের উপর হামলা করা খুবই সহজ৷ তাই প্রার্থীদের যতটা সম্ভব সতর্ক থাকতে বলা হয়েছে৷ অস্বাভাবিক কোনও আচরণ চোখে পড়লে সঙ্গে থাকা নিরাপত্তা কর্মীকে জানাতে বলা হয়েছে৷ অপরদিকে স্পর্শকাতর বিভিন্ন বুথগুলি বিশেষত যেসব এলাকা জঙ্গি প্রবণ সেখানেও নিরাপত্তা কর্মীর সংখ্যা বাড়ানো হয়েছে৷

১১ এপ্রিল কাশ্মীরের বারামুল্লা ও জম্মুতে ভোট গ্রহণ৷ শ্রীনগর, উধমপুরে ভোট ১৮ এপ্রিল৷ অনন্তনাগ ও অনন্তনাগ (কুলগাম জেলা) কেন্দ্রে ভোট গ্রহণ ২৩ ও ২৯ এপ্রিল৷ অনন্তনাগের সোপিয়ান ও পুলওয়ামা এবং লাদাখ ভোট শেষ দফায়৷ অর্থাৎ ৬ মে৷