নয়াদিল্লি : বরাবরই কেন্দ্রে মোদী সরকারের বিরুদ্ধে সরব তিনি। সেই মাফলার ম্যান অরবিন্দ কেজরিওয়াল সাম্প্রতিক ট্যুইট দেখে বেশ অবাক দেশ। অযোধ্যায় রাম মন্দিরের ভূমি পুজো ইস্যু উঠে এসেছে তাঁর ট্যুইটে। তবে বিরোধিতা নয়। রীতিমত ট্যুইটে জয় শ্রী রাম লিখে দেশবাসীকে বুধবার ভূমি পুজোর শুভেচ্ছা জানিয়েছেন দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী।

ট্যুইটে তিনি লেখেন, গোটা দেশকে ভূমি পুজোর শুভেচ্ছা। দেশ যেন ভগবান রামের আশীর্বাদ পায়। দারিদ্র ও ক্ষুধার দানবকে হারিয়ে ভারত যেন আরও শক্তিশালী হয়ে ওঠে। গোটা বিশ্বকে যেন ভারত একদিন পথ দেখায়। জয় শ্রী রাম। জয় বজরংবলী। এদিন হিন্দিতে ট্যুইট করেন কেজরিওয়াল।

বুধবার বেলা বারোটায় ভূমিপুজোর অনুষ্ঠান অযোধ্যায়। বহু প্রতিক্ষিত এই রাম মন্দিরের ভূমি পুজো। উপস্থিত থাকবেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী সহ একাধিক বিজেপি শীর্ষ স্থানীয় নেতা। নির্দিষ্ট সময়ে পাঁচটি রুপোর ইঁট বসিয়ে শুরু হবে ভূমি পুজো। এই ইঁট পাতবেন প্রধানমন্ত্রী স্বয়ং।

এর আগে, রামের ছবি পোস্ট করলেন প্রিয়াঙ্কা গান্ধীর স্বামী রবার্ট ভাডরা। মঙ্গলবারই একটি পোস্টার ট্যুইট করেন তিনি। সেখানে ভগবান শ্রী রামের ছবি দিয়ে লেখা রয়েছে ‘জয় সিয়ারাম।’ সঙ্গে নীচে তাঁর নিজের একটি ছবি সহ একটা মেসেজ রয়েছে। লেখা আছে, ‘রাম মন্দিরের ভূমিপূজন হয়ে উঠুক একতা, বন্ধুত্ব ও সাংস্কৃতিক সমাগমের অনুষ্ঠান।’ এর আগে প্রিয়াঙ্কা গান্ধীও একই কথা বলেন।

তিনি বলেন, ভূমি পূজন হয়ে উঠুক সারা দেশের একতার প্রতীক। এদিকে, বিশ্ব হিন্দু পরিষদ বাটেশ্বর গ্রামের অটল বিহারী বাজপেয়ীর পৈতৃক বাড়ি থেকে রাম মন্দিরের ভূমি পুজোর জন্য কলসী ভরে সেখান থেকে মাটি নেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

এছাড়াও মঙ্গলবার আগ্রার মেয়র নবীন জৈন আগ্রার শ্রী মহাভীর দিগম্বর জৈন মন্দিরের মাটি ভরা একটি কলসি বিশ্ব হিন্দু পরিষদের হাতে তুলে দিয়েছে। এই মাটিটিকে এদিন অযোধ্যাতে নিয়ে যাওয়া হবে বলে জানা গিয়েছে।

অন্যদিকে, অযোধ্যার যেন রূপটাই বদলে গিয়েছে। গোটা অযোধ্যাই সেজে উঠেছে কোনও পীতাম্বরী বধূর সাজে। সারা অযোধ্যাকে হলুদ করে দেওয়া হয়। চারিদিকে হলুদ দেওয়াল, ফুলের মালা দিয়ে সাজানো হয়।

প্রশ্ন অনেক: দশম পর্ব

রবীন্দ্রনাথ শুধু বিশ্বকবিই শুধু নন, ছিলেন সমাজ সংস্কারকও