কলকাতা: এবার রাজ্যে চাকরি করা আইএএস ও আইপিএস অফিসারদের সতর্ক করে পরোক্ষে মুখ্যমন্ত্রীকেই বিঁধলেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়। রাজ্যে কাজ করা আইএএস এবং আইপিএস আধিকারিকদের উদ্দেশ্যে রাজ্যপাল বলেন, ‘রাজনৈতিকভাবে নিরপেক্ষ থাকুন। দায়িত্ব পালনে শৃঙ্খলা মেনে চলতে হবে।’

নবান্নের সঙ্গে সংঘাত বাড়াল রাজভবন। এবার রাজ্যে কাজ করা আইএএস ও আইপিএস অফিসারদের সতর্ক করে টুইট বার্তায় ফের রাজ্যের অস্বস্তি বাড়ালেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়। মুখ্যমন্ত্রীকে ট্যাগ করে আইএএস ও আইপিএস অফিসারদের সতর্ক করেছেন ধনখড়।

টুইটে তিনি লেখেন, ‘আইএএস-আইপিএস’রা ১৯৬৮-র অল ইন্ডিয়া সার্ভিসেস (কন্ডাক্ট) রুলস মেনে চলুন। নিয়ণ অনুযায়ী আপনাদের রাজনৈতিক ভাবে নিরপেক্ষ ও স্বচ্ছ হতে হবে। সংবিধানের মর্যাদা রক্ষা ও গণতান্ত্রিক মূল্যবোধ মানতে আপনারা বাধ্য।’

অন্য একটি টুইটে রাজ্যপাল আইএএস ও আইপিএস অফিসারদের সতর্ক করে আরও লেখেন, ‘আপনারা এমন কিছু করতে পারেন না, যা দেশের আইন, বিধি, প্রচলিত ধারার বিরুদ্ধে যায়। আইনি নির্দেশ পালনে আপনারা দায়বদ্ধ।’

এরাজ্যে আইএএস ও আইপিএস অফিসারদের দায়িত্ব পালনে খামতি রয়েছে বলে মনে করেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়। শষ টুইটে এপ্রসঙ্গে তিনি লেখেন, ‘পেশাদারি মনোভাব ও সক্ষমতা দিয়ে কাজ করতে হবে৷ বিধি ভাঙা দেখে রাজ্যপাল হিসেবে আমি উদ্বিগ্ন।’

এরাজ্যে রাজ্যপালের দায়িত্ব নিয় আসার পর থেকেই রাজ্য সরকারের সঙ্গে একাধিক ইস্যুতে দ্বিমত তৈরি হয়েছে জগদীপ ধনখড়ের। রাজ্যের শিক্ষাক্ষেত্র থকে শুরু করে স্বাস্থ্য ব্যবস্থা নিয় একাধিকবার রাজ্য সরকারের সমালোচনা করেছেন রাজ্যপাল। যা নিয়ে বিতর্ক তৈরি হয়েছে।

রাজ্যপালকে বিজেপির এজেন্ট হিসেবেও তোপ দাগতে ছাড়েননি শাসকদল তৃণমূলের নেতারা। একাধিক মন্ত্রীও ধনখড়কে দুষে নানা সময় নানা মন্তব্য করেছেন। খোদ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও রাজ্যপালের কড়া সমালোচনায় সরব হয়েছেন।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ