কলকাতা: কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাবর্তন অনুষ্ঠানে যোগ দিতে গিয়েও অনুষ্ঠানে অংশ নিতে পারলেন না রাজ্যপাল জগদীপ ধনকড়। পড়ুয়াদের বিক্ষোভে সমাবর্তন স্থান ছাড়লেন তিনি। সমাবর্তন অনুষ্ঠানে পৌঁছতেই ব্যাপক বিক্ষোভের মুখে পড়েন তিনি। অবশেষে তাঁকে ছাড়া অনুষ্ঠান শুরু হতেই সমাবর্তন স্থান ত্যাগ করলেন রাজ্যপাল।

পড়ুয়াদের বিক্ষোভের জেরে আটকে যায় রাজ্যপালের গাড়ি। পড়ুয়ারা রাজ্যপালের গাড়ি ঘিরে বিক্ষোভ দেখাতে থাকে। রাজ্যপালকে ঘিরে ‘গো ব্যাক’ স্লোগানও দেয় তাঁরা। গাড়ি নিয়ে যেতে না পেরে রাজ্যপাল নেমে পড়েন গাড়ি থেকে। সেখান থেকে পুলিশি নিরাপত্তার বেষ্টনীর মাধ্যমে নজরুল মঞ্চের গ্রিনরুমে প্রবেশ করেন রাজ্যপাল। সেখানেই বেশ কিছুক্ষণ অপেক্ষা করেন জগদীপ ধনকড়।

সংবাদ মাধ্যমের সামনে পড়ুয়ারা দাবি করেন, ‘রাজ্যপাল বিজেপির দালাল’। তিনি ফিরে গেলে তবেই এই আন্দোলন থামাবে পড়ুয়ারা।

অন্যদিকে পড়ুয়াদের বিক্ষোভের মুখে পড়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য সোনালী চক্রবর্তী বন্দ্যোপাধ্যায় জানান, এই সম্মান প্রাপকদের হাতে তুলে দেবেন উপাচার্যই। তাঁর সঙ্গে ছাত্রদের কিছুক্ষণ কথার পর পরিস্থিতি কিছুটা আয়ত্তে আসে। যদিও উপাচার্য সোনালী চক্রবর্তী বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়ে দেন, রাজ্যপালকে ছাড়াই সমাবর্তন অনুষ্ঠান হবে। এরপর মঞ্চের সামনে থেকে সরে যায় বিক্ষোভরত পড়ুয়ারা। নির্ধারিত সময় ১ টা জানানো হলেও তার বেশ কিছুক্ষণ পরেই শুরু হয় এই অনুষ্ঠান।

উল্লেখ্য, এই সমাবর্তনে সাম্মানিক ডিলিট প্রদান করা হয় নোবেলজয়ী অভিজিৎ বিনায়ক বন্দ্যোপাধ্যায়কে। সমাবেশে ভাষণও দেন নোবেলজয়ী বাঙালি অর্থনীতিবিদ। সব মিলিয়ে যাদবপুরের পর কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়েও সমাবর্তন অনুষ্ঠান হল রাজ্যপালকে ছাড়াই।