স্টাফ রিপোর্টার , কলকাতা : শেষ পর্যন্ত ভালো শীতের পূর্বাভাস দিল আলিপুর আবহাওয়া দফতর। আবহাওয়াবিদরা জানাচ্ছেন আগামী সপ্তাহেই শীতের ঠাণ্ডা হাওয়া প্রবেশের পথ খুলতে পারে। সূত্রের খবর রবিবার থেকেই পারদ নামবে। সোমবার থেকে ভালো শীত অনুভূত হতী পারে। সবমিলিয়ে সেই মাঝ ডিসেম্বরই যে শীতের আগমন ঘটতে চলেছে তা বলা যেতেই পারে।

এবারে শীতের লম্বা ইনিংস হওয়ার সম্ভাবনা তৈরি হচ্ছে। কিন্তু এর কারন কি? আবহাওয়াবিদরা জানাচ্ছেন পশ্চিমী ঝঞ্ঝার জেরে বৃষ্টি ও তুষারপাত উত্তর-পশ্চিম ভারতের রাজ্যে। ঝঞ্ঝা সরতেই সেই শীতল হাওয়া রাজ্যে শীত আনবে বলে মনে করছেন আবহাওয়াবিদরা। গত একমাসে স্বাভাবিকের নিচে পারদ নেমেছে মাত্র চারদিন। এখনও পর্যন্ত ডিসেম্বর মাসে স্বাভাবিকের নিচে পারদ নামেইনি। ডিসেম্বরের প্রায় মাঝামাঝি হতে চলল তবুও মাত্র দু’দিন স্বাভাবিক সর্বনিম্ন তাপমাত্রা পেয়েছে কলকাতা। তবে আবহাওয়া দফতরের আশার বাণী ১৫ ডিসেম্বরের পর থেকে এই প্রবণতা পরিবর্তন হতে চলেছে। স্বাভাবিক এর নীচে নামবে পারদ৷ আসবে শীত৷ অনুমান আবহাওয়াবিদদের।

গত ১২ নভেম্বরের পর থেকে ১১ ডিসেম্বর পর্যন্ত মাত্র চারদিন স্বাভাবিকের নিচে ছিল পারদ। অর্থাৎ সর্বনিম্ন তাপমাত্রা স্বাভাবিকের নিচে নেমেছিল। ১৩, ১৪ ও ২১ নভেম্বর স্বাভাবিক তাপমাত্রা ১ ডিগ্রি নীচে ছিল পারদ। এছাড়াও ২২ নভেম্বর সর্বনিম্ন তাপমাত্রা স্বাভাবিক ছিল। ডিসেম্বরের ১২ তারিখে এসেও পারদ স্বাভাবিকের নিচে নামতে পারেনি। ৩ ও ৫ ডিসেম্বর সর্বনিম্ন তাপমাত্রা স্বাভাবিক ছিল। এর মধ্যে ৫ ডিসেম্বর মরশুমের শীতলতম দিন ১৫.৯ ডিগ্রি সেলসিয়াসে নেমে ছিল সর্বনিম্ন তাপমাত্রা।

আবহাওয়া দফতরের মতে যা কলকাতায় সেদিনের স্বাভাবিক তাপমাত্রা ছিল। আগামী ৪৮ ঘণ্টায় ব্যাপক তুষারপাতের সম্ভাবনা জম্মু-কাশ্মীর, উত্তরাখণ্ড ও হিমাচল প্রদেশে।বজ্রবিদ্যুৎ সহ বৃষ্টি শিলাবৃষ্টি সামান্য ঝড়ো হাওয়া পাঞ্জাব, হরিয়ানা, চণ্ডীগড়, দিল্লি এবং পশ্চিম উত্তর প্রদেশে।

রাতের তাপমাত্রা সামান্য বাড়লেও দিনের তাপমাত্রা স্বাভাবিক কলকাতায়। শীতের আমেজ বাড়বে ৪৮ ঘণ্টা পর থেকে। কলকাতায় আজ আংশিক মেঘলা আকাশ। সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ১৮.৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস যা স্বাভাবিকের থেকে ৩ ডিগ্রি বেশি৷ গতকাল সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ২৭.৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস। যা স্বাভাবিক।

আগামী ৪৮ ঘণ্টায় সিকিম সংলগ্ন উত্তরের জেলাগুলোতে হালকা বৃষ্টির সম্ভাবনা। রাজ্যে বিক্ষিপ্ত ভাবে হালকা কুয়াশা হতে পারে।

প্রশ্ন অনেক: দশম পর্ব

রবীন্দ্রনাথ শুধু বিশ্বকবিই শুধু নন, ছিলেন সমাজ সংস্কারকও