মুম্বই: ৩০ জুন ২০১৭, ভারতের ক্যারিবিয়ান সফরে নর্থ-সাউন্ডে টিম ইন্ডিয়ার হয়ে শেষ ম্যাচ খেলেছেন৷ প্রায় দু’বছর জাতীয় দলের বাইরে থাকার পর আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে সরে দাঁড়ানোর এটাই সেরা সময় বলে পরিষ্কার জানিয়ে দিলেন যুবরাজ সিং৷ সোমবার মুম্বইয়ে সাংবাদিক বৈঠকে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট অবসর ঘোষণা করেন পঞ্জাবের এই বাঁ-হাতি৷

দেশের হয়ে ৪০টি টেস্ট, ৩০৪টি ওয়ান ডে এবং ৫৮টি টি-২০ ম্যাচ খেলা যুবরাজ অবসর প্রসঙ্গে বলেন, ‘প্রায় ২৫ বছর ক্রিকেট খেলছি৷ আর প্রায় ১৭ বছর আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলেছি৷ এটাই থেমে যাওয়ার সেরা সময়৷ খেলা আমাকে শিখিয়েছে, কীভাবে লড়াই করতে হয়৷ কীভাবে এগিয়ে যেতে হয়৷ দেশের হয়ে ৪০০ ম্যাচ খেলতে পেরে গর্বিত৷ যখন শুরু করেছিলাম, তখন ভাবিনি এতো ম্যাচ খেলতে পারব বলে৷ বাইশ গজে জার্নিটা ছিল অসাধারণ৷’

ভারতের দু’টি বিশ্বকাপ জয়ী (২০০৭ ও ২০১১ ) দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন যুবি৷ ২০০৭-এ মহেন্দ্র সিং ধোনির নেতৃত্বে প্রথম টি-২০ বিশ্বকাপে চ্যাম্পিয়ন হয় ভারত৷ এই দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন পঞ্জাবের এই বাঁ-হাতি৷ বিশ্বকাপে ডারবানে ইংল্যান্ড পেসার স্টুয়ার্ট ব্রডকে এক ওভারে ৬টি ছক্কা মেরে ইতিহাস গড়েছিলেন যুবরাজ৷

তবে ২০১১ বিশ্বকাপ জয়কে কেরিয়ারের সেরা মুহূর্ত বলছেন যুবি৷ তিনি জানান, ‘২৮ বছর পর বিশ্বকাপ জিতে ইতিহাস সৃষ্টিকারী দলের সদস্য হওয়াটা অবশ্য সেরা মুহূর্ত৷’ ধোনির নেতৃত্বে ২০১১ সালে ৫০ ওভারের বিশ্বকাপ জেত ভারত৷ এই বিশ্বকাপে ৩৬২ রান ও ১৫টি উইকেট নিয়ে ‘প্লেয়ার অফ দ্য টুর্নামেন্ট’ হয়েছিলেন যুবি৷ পাশাপাশি চার-চারটি ম্যাচে সেরা খেলোয়াড়ের পুরস্কারও জিতেছিলেন টিম ইন্ডিয়ার এই বাঁ-হাতি৷ দেশের হয়ে দু’টি বিশ্বকাপ দলের সদস্য হলেও টেস্ট ক্রিকেটে আশাপ্রদ পারফরম্যান্স না-করতে পারায় দুঃখ রয়ে গিয়েছে যুবরাজের৷

আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে অবসর নিলেও আইপিএল খেলা নিয়ে ধোঁয়াশা রাখলেন যুবি৷ তিনি বলেন, ‘২০১৯ আইপিএল আমরা জিতেছি৷ এটাই শেষ হলে মন্দ হয় না৷ তবে এখনই এটা নিয়ে ভাবচ্ছি না৷ আমি আরও ক্রিকেট খেলতে চাই৷’ অর্থাৎ আইপিএল এবং অনান্য টি-২০ খেলার রাস্তা খোলা রাখলেন পঞ্জাবের ৩৭ বছরের এই অল-রাউন্ডার৷ ভবিষ্যত পরিকল্পনা সম্পর্কে যুবরাজ বলেন, ‘আগামী দু-তিন বছর জীবনটা উপভোগ করতে চাই৷ এখনই কোচিং নিয়ে ভাবচ্ছি না৷ তবে কোনও না-কোনভাবে ক্রিকেটে ফিরব৷

সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়ের নেতৃত্বে ভারতীয় দলে অভিষেক এবং মহেন্দ্র সিং ধোনির নেতৃত্বে দু’টি বিশ্বকাপ জয়৷ সেরা অধিনায়ক বাছতে গিয়ে যুবরাজ বলেন, ‘সৌরভের অধিনায়কত্বে আমার ভারতীয় দলে অভিষেক হয়েছে৷ আর ধোনির নেতৃত্বে প্রচুর ট্রফি জিতেছি৷ সুতরাং আমার কেরিয়ারে দুই অধিনায়কেরই অবদান রয়েছে৷’